আলোচিত মিন্নির ভাইরাল সেই x ভিডিও দেখুন।

0

<<<<বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হলেন জাতির ভাবি মিন্নি>>>>>

বরগুনায় রিফাত হত্যা মামলায় স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিকে দিনভর জিজ্ঞাসাবাদের পর গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) রাত সাড়ে নয়টার দিকে সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা জানান বরগুনার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন।

তিনি জানান, সকাল সাড়ে নয়টার পর তার বাসা থেকে পুলিশ তাকে নিয়ে আসে।

দিনভর জিজ্ঞাসাবাদে রিফাত হত্যায় তার জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়ার প্রেক্ষিতে তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।আগামীকাল তাকে আদালতে হাজির করে পরবর্তী আইনি পদক্ষেপগুলো গ্রহণ করা হবে বলেও জানিয়েছেন পুলিশ সুপার।সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, রিফাত হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই মিন্নিকে পুলিশি নজরদারির মধ্যে রাখা হয়েছি।

পর্যবেক্ষণে পুলিশ মিন্নির জড়িত থাকার সত্যতা পেয়েছে।এর আগে পুলিশের পক্ষ থেকে সকাল থেকে বলা হচ্ছিল, রিফাত হত্যায় অভিযুক্ত অন্য যেসব আসামি রিমান্ডে আছে তাদের মুখোমুখি করার জন্যই মিন্নিকে পুলিশ লাইন্সে আনা হয়েছে। সেখানে দিনভর পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে এ হত্যাকাণ্ডে তার জড়িত থাকার ইঙ্গিত পেয়েছে পুলিশ।

এ কারণেই তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। আদালতে মিন্নির রিমান্ড চাওয়া হবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে পুলিশ সুপার জানান, ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে যেটা করার সেটাই তারা করবেন।

সেক্ষেত্রে যদি মনে হয়, তাকে রিমান্ড নেয়ার দরকার আছে, সেক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত নিয়ে আদালতে মিন্নির রিমান্ড চাইবে পুলিশ এবং আরো জিজ্ঞাবাদ করা হবে।

নারীদের খৎনা যেভাবে করা হয় । উপকারীতা ও অপকারিতা

0

জাতিসংঘের হিসাবে, বিশ্বের প্রতিটি ২০জন মেয়ে শিশু বা নারীর মধ্যে একজনের খৎনা করা হয়ে থাকে, যাকে ইংরেজিতে বলা হয় এফিএম বা ফিমেল জেনিটাল মিউটিলেশন।

বর্তমান বিশ্বে এরকম বিশ কোটি নারী রয়েছেন, যাদের আংশিক অথবা পুরো খৎনা অর্থাৎ যৌনাঙ্গ কেটে ফেলা হয়েছে। নারীদের এরকম যৌনাঙ্গ কর্তন বন্ধের আহবান জানিয়ে প্রতিবছরের ৬ই ফেব্রুয়ারি এ বিষয়ে ‘জিরো টলারেন্স’ দিবস হিসাবে পালন করে জাতিসংঘ।

অনেক নারী ও মেয়ের শিশু অবস্থাতেই এরকম খৎনা করা হয়, এমনকি শিশুদেরও। অনেক সময় বয়ঃসন্ধির সময় এটি করা হয়। কিন্তু এর ফলে নারীদের শারীরিক এবং মানসিক সমস্যার তৈরি হয়, যা পরবর্তীতে তাদের সারাজীবন ধরে বয়ে বেড়াতে হয়।

নারীদের খৎনা আসলে কী?
নারীদের খৎনার মানে হলো ইচ্ছাকৃতভাবে মেয়েদের যৌনাঙ্গের বাইরের অংশটি কেটে ফেলা। অনেক সময় ভগাঙ্কুর এর পাশের চামড়া কেটে ফেলা হয়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এর ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বলেছে, ” চিকিৎসার প্রয়োজন ব্যতীত এমন যেকোনো প্রক্রিয়া, যা নারীদের যৌনাঙ্গের ক্ষতি করে থাকে।”

এ ধরণের কাজে নারীদের শারীরিক এবং মানসিকভাবে ক্ষতি করে থাকে, যার স্বাস্থ্যগত কোন উপকারিতা নেই। নারীদের জন্য উদ্বেগ এবং তাদের পরবর্তী সম্পর্কের ওপর মারাত্মকভাবে ক্ষতি করে এই বিষয়টি। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মেয়েদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে বা জোর করে এটি করা হয়ে থাকে। এরকম খৎনার শিকার একজন নারী বিশারা বলছেন, আরো চারটি মেয়ের সঙ্গে খৎনা করা হয়েছিল।

”প্রথমে আমার চোখ বেধে ফেলা হয়। এরপর আমার দুই হাত পেছনে শক্ত করে বাধা হয়। আমার দুই পা দুইদিকে মেলে ধরে যৌনাঙ্গের বাইরের চামড়া দুইটি শক্ত করে পিন কিছু দিয়ে আটকে দেয়া হয়।”

“কয়েক মিনিট পর আমি তীক্ষ্ণ একটি ব্যথা অনুভব করলাম। আমি চিৎকার করতে লাগলাম, আর্তনাদ করলাম, কিন্তু কেউ আমার কথা শুনলো না। আমি লাথি মেরে নিজেকে মুক্ত করার চেষ্টা করলাম, কিন্তু দানবের মতো কেউ আমার পা চেপে ধরে রাখল।”

তিনি বলছেন, এটি ছিল অত্যন্ত কষ্টকর। পরে অন্য সব মেয়েদেরও একই অভিজ্ঞতার ভেতর দিয়ে যেতে হয়। ব্যথা নিরাময়ের জন্য ছিল শুধুমাত্র স্থানীয়ভাবে তৈরি ভেষজ ওষুধ।

”একটা ছাগলের মতো করে তারা আমার দুই পা টেনে ধরে ক্ষত স্থানে সেই ভেজষ ওষুধ মাখিয়ে দিল। এরপর বলতে লাগলো, পরের মেয়েটিকে নিয়ে আসো।”

যদিও মেয়েদের এরকম খৎনা অনেক দেশেই বেআইনি, তবে দক্ষিণ আফ্রিকা, এশিয়া আর মধ্যপ্রাচ্যের অনেক দেশি এটি করা হয়ে থাকে। বিশ্বের অন্যান্য দেশের অনেক সম্প্রদায়ের মধ্যেও এটি প্রচলিত আছে।

মেয়েদের ক্ষেত্রে চার ধরণের খৎনা
১. ভগাঙ্কুর এবং আশেপাশের চামড়ার পুরোটাই বা আংশিক কেটে ফেলা

২. ভগাঙ্কুর, যৌনাঙ্গের বাইরের বা ভেতরের চামড়া অপসারণ করে ফেলা

৩. যৌনাঙ্গের বাইরের বা ভেতরের অংশের চামড়ার অংশটি কেটে ফেলে পুন:স্থাপন করা।

যৌনাঙ্গের বাইরের এবং ভেতরের চামড়া কেটে এমনভাবে পুনঃ স্থাপন করা হয়, যাতে শুধুমাত্র মূত্র ত্যাগের জন্য ছোট একটি ফাঁকা থাকে। এতে অনেক সময় নারীদের নানা সংক্রমণে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে।

অনেক সময় এই ফাঁকা জায়গাটি এতো ছোট হয়ে থাকে যে, যৌন মিলনের জন্য পরবর্তীতে আবার কেটে বড় করতে হয়। অনেক সময় সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে মা ও শিশুর জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠে।

৪. ওপরের তিনটির বাইরে ভগাঙ্কুরের বা যৌনাঙ্গের সবরকম কাটা ছেড়া বা ক্ষত তৈরি করা

কেন এটি করা হয়?
নারীদের খৎনার পেছনে যেসব কারণ মূলত কাজ করে: সামাজিক রীতি, ধর্ম, পরিছন্নতার বিষয়ে ভুল ধারণা, কৌমার্য রক্ষার একটি ধারণা, নারীদের বিয়ের উপযোগী করে তোলা এবং পুরুষের যৌন আনন্দ বৃদ্ধি করার মতো বিষয়।

অনেক সংস্কৃতিতে নারীদের খৎনাকে মেয়েদের সাবালিকা হয়ে ওঠা মনে করা হয়। এটিকে অনেক সময় বিয়ের পূর্বশর্ত হিসাবেও দেখা হয়।

যদিও পরিছন্নতার বা স্বাস্থ্যগত কোন সুবিধা নেই, কিন্তু এ ধরণের রীতিতে অভ্যস্ত সমাজগুলোর মানুষেরা মনে করেন, যেসব মেয়েদের এরকম খৎনা করা হয়নি, তারা তারা অস্বাস্থ্যকর, অপরিছন্ন বা গুরুত্বহীন।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে নারীদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে এটি করা হয় এবং বিশ্বের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, এটি নারীদের বিরুদ্ধে একটি সহিংস আচরণ।

কোথায় এ ধরণের রীতি চালু আছে?
বর্তমানে আফ্রিকার অনেক এলাকায়, মধ্যপ্রাচ্য ও এশিয়ার কিছু অংশে এই রীতি চালু আছে। তবে ইউরোপ ও অস্ট্রেলিয়ার কিছু অভিবাসী সমাজে, উত্তর এবং দক্ষিণ আমেরিকার কোন কোন গোষ্ঠীর ভিতর এই প্রবণতা রয়েছে।

ইউনিসেফের প্রতিবেদন অনুযায়ী, আফ্রিকা এবং মধ্যপ্রাচ্যের ২৯টি দেশে ব্যাপকভাবে এই রীতি চালু রয়েছে, যদিও এদের মধ্যে ২৪টি দেশেই এটি নিষিদ্ধ।

এমনটি যুক্তরাজ্যে নারীদের খৎনা বেআইনি, তবে মেয়ে শিশুদের ওপর এরকম খৎনা করার প্রবণতা বাড়ছে। এসব শিশুরা স্কুলে না পড়ায় বা যথেষ্ট বড় না হওয়ায় কর্তৃপক্ষ সহজে সনাক্ত করতে পারেন না।

অনেকে দেশে বেআইনি হওয়া সত্ত্বেও পরিবারের ঘনিষ্ঠজনদের সাজা হতে পারে, এরকম আশঙ্কা থেকে ভুক্তভোগীরা আর অভিযোগ সামনে আনেন না।

কিছুদিন আগে উগান্ডা থেকে আসা একজন মা প্রথম ব্যক্তি হিসাবে এ ধরণের অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। সূত্র বিবিসি বাংলা

১০ পর্ন তারকাদের আয় শুনলে ভিড়মি খাবেন।সানি লিওন২১ নম্বরে

0

যে ইন্ডাস্ট্রির মোট আয় বছরে ১৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, সেখানে স্টারদের আয় কী রকম কখনও ভেবে দেখেছেন? জানলে চমকে উঠবেন। আয়ের নিরিখে অনেক দেশের বড় বড় স্টারদের অনায়াসে টেক্কা দিতে পারেন এই পর্ন তারকারা। এক নজরে দেখে নিন, আয়ের বিচারে প্রথম ১০ জন পর্ন তারকা কারা এবং তাঁদের বার্ষিক আয় কত।

১০) লেক্সিনটন স্টিলি: এক সময় পেশায় স্টক ব্রোকার ছিলেন একটি নামকরা ফার্মে। ২০০১ সালে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে য়খন হামলা হয়, তখন তিনি সেখানেই ছিলেন। বরাত জোরে বেঁচে গিয়েছিলেন। এঁর বার্ষিক আয় ৬০ লক্ষ মার্কিন ডলার।

৯) কেটি মর্গ্যান: এক সময় জেলবন্ধি জীবন কাটাচ্ছিলেন কেটি। মেক্সিকো থেকে আমেরিকায় মারিজুয়ানা পাচার করতে গিয়ে ধরা পড়ে গিয়েছিলেন তিনি। নিজের জামিন এবং মামলা লড়ার খরচ জোগাড় করতেই এই পেশায় আসেন কেটি। এখন অন্যতম ধনী তারকা তিনি। বছরে আয় ৬০ লক্ষ মার্কিন ডলারের কিছু বেশি।

৮) ব্রি ওলসন: ছোটবেলা থেকেই অভিনয়ের শখ ছিল। স্টেজে এক সময় অভিনয়ও করেছেন। তার পর এ পেশায় আসা ঠিক করেন। এ মুহূর্তে আয়ের বিচারে তিনি ৮ নম্বরে রয়েছে। বার্ষিক আয় ৭০ লক্ষ মার্কিন ডলার।

৭) রন জেরেমি: এক সময় শিক্ষক ছিলেন। পরে অভিনেতা হওয়ার আশায় নিউ ইয়র্কের রাস্তায় রাস্তায় ভিক্ষে পর্যন্ত করতে হয়েছে তাঁকে। এখন তাঁকে বেস্ট মেল পর্ন স্টারের আখ্যা দেওয়া হয়। ব্যাঙ্ক ব্যালান্সও সে কথাই বলে। বার্ষিক আয় ৭৫ লক্ষ মার্কিন ডলার।

৬) মারিয়া তাকাগি: এ মুহূর্তে অন্যতম জনপ্রিয় পর্ন অভিনেত্রী। জাপান থেকে সোজা মার্কিন মুলুকে পাড়ি জমানোর পর আয়ের বিচারেও সকলকে টেক্কা দিচ্ছেন। বার্ষিক আয় প্রায় ৮০ লক্ষ মার্কিন ডলার।

৫) জেসি জেন: নিউ ইয়র্কে তিনি রীতিমতো জনপ্রিয়। একটি আর্টিকেলে লেখা হয়েছিল, ‘তিনি ২ বার ব্রেস্ট ইমপ্ল্যান্ট অপারেশন করিয়েছেন। আসলে অপারেশন নয়, ইনভেস্টমেন্ট।’ বার্ষিক আয় ৯০ লক্ষ মার্কিন ডলার।

৪) ট্রেসি লর্ডস: আসল নাম নোরা লুইসি কুজমা। মাত্র ১৫ বছর বয়সে এক জন ন্যুড মডেল হিসাবে কেরিয়ার শুরু করেন ট্রেসি। দীর্ঘ কেরিয়ার শেষ করেছেন। তার সঙ্গে বানিয়েছেন বিরাট ব্যাঙ্ক ব্যালান্স। বার্ষিক আয় ১ কোটি মার্কিন ডলার।

৩) পিটার নর্থ: গিয়েছিলেন মডেল হতে, হয়ে গেলেন পর্ন তারকা। একটি ইন্টারভিউতে নিজের মুখেই এ কথা স্বীকার করেছেন নর্থ। একটি প্রাইভেট পার্টিতে মডেলিংয়ের কাজ করার সময় এক পরিচালকের নজরে পড়ে যান তিনি। তার পর প্রচুর পর্ন মুভিতে অভিনয় করেছেন এবং নিজেও পরিচালনার কাজ করেছেন। বার্ষিক আয় ১ কোটি ১০ লক্ষ মার্কিন ডলার।

২) টেরা প্যাট্রিক: ১৯৯৯ সালে পর্ন দুনিয়ায় নিজের কেরিয়ার শুরু করেন টেরা। ২০০৮ সালে অবসর নিলেও নিজের প্রোডাকশন হাউস চালান। বিশ্বজুড়ে নিজের অভিনীত ছবিগুলিকে লাইসেন্স করিয়েছেন। সেই থেকেই বিরাট আয় হয় তাঁর। এখন বছরে আয় করেন দেড় কোটি মার্কিন ডলার।

১) জেনা জেমসন্স: বয়ফ্রেন্ডের ওপর রাগ করে হঠাত্‍ করে ঠিক করেন পর্ন তারকা হবেন, ব্যস যেমন ভাবা তেমন কাজ। হয়েই গেলেন। এ মুহূর্তে রোজগারের বিচারে এক নম্বরে রয়েছেন জেনা। বার্ষিক আয় ৩ কোটি মার্কিন ডলার।

স্পেশাল মেনশন: হ্যাঁ, যাকে খুঁজছেন তিনিও আছেন তালিকায়। সানি লিওন। পর্ন সিনেমায় মুখ দেখানো ছেড়েছেন অনেক দিন হয়ে গিয়েছে, তবে আয়ের বিচারে তিনি আছেন ২১ নম্বরে।

ধর্ষণের পর রক্তাক্ত নারী শ্রমিক

0

যেকোনো নারীকে একা পেলেই ধর্ষণের ‘টার্গেট’ নিয়েছিলেন ওরা চারজন। সেই মোতাবেক সিএনজিচালিত অটোরিকশায় যাত্রী পরিবহনের ‘ফাঁদ’ও পাতা হয়। পরে এক নারী শ্রমিককে গন্তব্যে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে তাঁকে ধর্ষণ করা হয়। পিরিয়ডের কথা বলেও রেহাই পাননি তিনি, ধর্ষণের পর রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে ফেলে রাখা হয় রাস্তার পাশে।

এই ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেপ্তার দুই আসামি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এসব কথা বলেছেন। আজ শনিবার বিকেলে চট্টগ্রামের আনোয়ারার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম জয়ন্তী রানী রায়ের আদালতে তাঁরা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। আনোয়ারায় এক নারী শ্রমিককে ধর্ষণের ঘটনায় ওই দুজনকে গতকাল শুক্রবার রাতে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন—পটিয়া উপজেলার দক্ষিণ ছনহরা গ্রামের হেলাল উদ্দিন (৩০) ও আনোয়ারা উপজেলার বৈরাগ গ্রামের মোহাম্মদ মামুন (১৮)। মামুন ওই সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক।

গ্রেপ্তার দুজনের স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে আনোয়ারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল মাহমুদ জানান, যেকোনো নারীকে একা পেলে ধর্ষণের ‘টার্গেট’ নিয়ে সিএনজিচালিত অটোরিকশা নিয়ে চাতরী চৌমুহনী বাজারে অবস্থান নিয়েছিলেন চার ব্যক্তি। ওই সময় এক নারী চন্দনাইশের বরকল যাওয়ার কথা বললে অটোরিকশা চালক মামুন তাঁকে উঠতে বলেন। ওই অটোরিকশার পেছনে ছিলেন আনোয়ারার বৈরাগ ইউনিয়নের আবদুল নূর, বাঁশখালীর মোহাম্মদ শহীদ এবং সামনে চালক মামুনের পাশে বসেন হেলাল। চাতরী চৌমুহনী থেকে ছেড়ে যাওয়া গাড়িটি কালাবিবির দীঘি সংলগ্ন এলাকায় এলে আবদুল নূর ও শহীদ ওই নারীর মুখ চেপে ধরেন। ওই সময় অটোরিকশাটি চীনা অর্থনৈতিক অঞ্চলের রাস্তা দিয়ে ভেতরে চলে যায়। সেখানে রাস্তার পাশে প্রথমে আবদুল নূর ও পরে শহীদ ওই নারীকে ধর্ষণ করেন। ওই নারী পিরিয়ড সংক্রান্ত অসুস্থতার কথা বলে ছেড়ে দিতে বললেও তারা শোনেনি। দুজনের ধর্ষণের পর ওই নারী রক্তাক্ত হয়ে পড়লে সেখান থেকে পালিয়ে যান চালক মামুন ও হেলাল।

পুলিশ সূত্র জানায়, গত বুধবার রাতে কারখানার কাজ শেষে বাড়ি ফেরার পথে ওই নারী (১৯) ধর্ষণের শিকার হন বলে অভিযোগ ওঠে। তাঁকে রাতে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওই নারী স্থানীয় একটি কারখানায় কাজ করতেন। তাঁর বাড়ি চন্দনাইশ উপজেলায়। এ ঘটনায় ওই নারীর বড় ভাই বাদী হয়ে অজ্ঞাত ৪ জনকে আসামি করে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আনোয়ারা থানায় মামলা করেন।

ওসি দুলাল মাহমুদ প্রথম আলোকে বলেন, ধর্ষণের মামলায় দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। দুজনই শনিবার বিকেলে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। পরে তাঁদের জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। ঘটনায় জড়িত অন্য দুজনকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

বিশ্বকাপে কেমন করলেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা?

0
বিশ্বকাপে বাংলাদেশের হয়ে ব্যাট করতে নেমেছেন ১৪ জন। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মোট রান ২১৪৫। ৩টি সেঞ্চুরি ১১টি ফিফটি। ২১০টি চার ও ২১টি ছক্কা মেরেছেন।

বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মোট রানের ৪৫.৩৬ শতাংশ এসেছে সাকিব ও মুশফিকের ব্যাটে। এই দুজন ছাড়া আর কেউ সেঞ্চুরি পাননি, লিটন এক ইনিংসে ৯৪ রানে অপরাজিত ছিলেন। ১৪টি পঞ্চাশোর্ধ্ব ইনিংসের সাতটিই খেলেছেন সাকিব। বাংলাদেশের ৫ ব্যাটসম্যানের স্ট্রাইক রেট ছিল এক শর ওপরে। আরও ৫ জনের স্ট্রাইক রেট ছিল ৯০ থেকে ৯৮। দুজন ব্যাটসম্যানের স্ট্রাইক রেট ছিল আশির ঘরে। স্ট্রাইক রেটের দিক দিয়ে তামিম ইকবালের (৭১.৬৪) নিচে কেবল একজনই ছিলেন—মোস্তাফিজ (১৪.২৮)।

রান তোলায় সাকিব বিশ্বকাপের সব ব্যাটসম্যানের মধ্যেই শীর্ষে। ১১ নম্বরে মুশফিক। ত্রিশে তামিম। তেত্রিশে মাহমুদউল্লাহ। ৪৩-এ লিটন দাস। ৪৭-এ সৌম্য সরকার।

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের ব্যাটিং

খেলোয়াড় ম্যাচ রান সর্বোচ্চ গড় ১০০/৫০
সাকিব ৬০৬ ১২৪* ৮৬.৫৭ ২/৫
মুশফিক ৩৬৭ ১০২* ৫২.৪২ ১/২
তামিম ২৩৫ ৬২ ২৯.৩৭ ০/১
মাহমুদউল্লাহ ২১৯ ৬৯ ৪৩.৮০ ০/১
লিটন ১৮৪ ৯৪* ৪৬.০০ ০/১
সৌম্য ১৬৬ ৪২ ২০.৭৫ ০/০
মোসাদ্দেক ১১৭ ৩৫ ১৯.৫০ ০/০
সাইফউদ্দিন ৮৭ ৫১* ২৯.০০ ০/১
মিঠুন ৪৭ ২৬ ১৫.৬৬ ০/০
মিরাজ ৩৭ ১২ ১২.৩৩ ০/০
সাব্বির ৩৬ ৩৬ ১৮.০০ ০/০
মাশরাফি ৩৪ ১৫ ৮.৫০ ০/০
রুবেল ৯.০০ ০/০
মোস্তাফিজ ০.৩৩ ০/০

 

 

তারা কোর্টকে পকেটে রাখত

0

বিএনপি কোর্টকে তাদের পকেটে রাখত বলে মন্তব্য করেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। শুক্রবার নবনির্মিত কসবা উপজেলা পরিষদ ভবন উদ্বোধনকালে সাংবাদকিদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন। খবর বাসসের। মন্ত্রী বলেন, বিএনপির আমলে এদেশে কোনো আইনের শাসন ছিল না। তারা কোর্টকে তাদের পকেটের মধ্যে রাখত। সেই আমল বদলে গেছে কিন্তু তাদের চিন্তাধারার কোনো পরিবর্তন হয়নি।

শেখ হাসিনার ট্রেনবহরে হামলার বিচার প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, দীর্ঘ ২২ বছর পর সম্পূর্ণ সাক্ষী-প্রমাণের ভিত্তিতে আদালত এ রায় দিয়েছেন। এটাকে ফরমায়েশি রায় কি করে তারা বলে তা আমি বুঝি না।

চার কোটি ১১ লাখ টাকা ব্যয়ে উপজেলা পরিষদ প্রশাসনিক ভবন ও হলরুম উদ্বোধনের সময় উপস্থিত ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক হায়াত উদ দৌলা খান, উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট রাশেদুল কাওসার ভূইয়া জীবন ও পৌরমেয়র মো. এমরান উদ্দিন জুয়েল প্রমুখ।

প্রবাসীদের পেনশন স্কিম চালুর জন্য মানবিক আবেদন

0

প্রবাসীদের পেনশন স্কিম চালুর জন্য সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী বরাবর মানবিক আবেদন জানিয়েছেন অস্ট্রিয়া প্রবাসী বাংলাদেশি।প্রবাসীরা হলো বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের মূল চালিকাশক্তি। অথচ বাংলাদেশিরা তার নিজ দেশে অনেক সময় অবহেলিত হয়। এছাড়া দীর্ঘদিন প্রবাস জীবনে নিজের পরিবার পরিজনের আবদার পূরণ করার পর শেষ সময়ে নিজের কাছে কিছু থাকে না। তখন অনেকটা অসহায় জীবন যাপন করতে হয়।

এ বিষয়টি মাথায় রেখেই প্রধানমন্ত্রী, বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রনালয় এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বরাবর পেনশন স্কিম চালু করার আবেদন করেছেন ভিয়েনাস্থ প্রবাসী বাংলাদেশি এবং আয়েবার কার্যকরী কমিটির সদস্য পারভেজ মনোয়ার।পারভেজ মনোয়ার বলেন, বিভিন্ন দেশ বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্য এবং মালয়েশিয়া ভ্রমন করার সময় অনেক প্রবাসী বাংলাদেশি ভাইয়ের কষ্ট দেখে নিজের মধ্যে একটি চাপা কষ্ট বিরাজ করতো। এছাড়াও আমার অনেক ভাইকে দেখেছি যারা দীর্ঘদিন প্রবাস জীবনে থাকার পর নিজের কাছে শেষ সম্বল বলতে কিছু থাকে না।

তিনি বলেন, আমরা প্রায় ১ কোটি প্রবাসী বাংলাদেশি বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছি। প্রবাসীদের পেনশন স্কিম গড়ে বছরে ১০০ থেকে ৩০০ ডলার হয়। তাহলে সরকার বছরে প্রায় ১ থেকে ৩ বিলিয়ন ডলার বৈদেশিক মুদ্রা পাবে প্রবাসীদের কাছ থেকে।দেখা যাচ্ছে এ বৈদেশিক মুদ্রা প্রিমিয়াম হিসেবে প্রবাসী বাংলাদেশিরা সরকারকে প্রদান করলে সরকার ও দেশের জনগন যেমন লাভবান হবে তেমনি প্রবাসী বাংলাদেশিরা পরবর্তীতে এ সুফল ভোগ করবে। আমি আশা করবো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমার এ আবেদনটি গ্রহন করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ে এ বিষয়ে কাজ করার নির্দেশনা দেবেন।

দেশে লবণের কোনো ঘাটতি নেই: শিল্পমন্ত্রী

0

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন বলেছেন, বাংলাদেশে লবণের কোনো ঘাটতি নেই। এই দেশে চাহিদার তুলনায় অতিরিক্ত লবণ উৎপাদন হচ্ছে। সুতরাং বিদেশ থেকে লবণ আমদানি করা হবে না। দেশের উৎপাদিত লবণ দিয়েই চাহিদা পূরণ করা হবে। দেশে লবণ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন এবং আয়োডিন ঘাটতি পূরণে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ সরকার। আওয়ামী লীগ সরকার প্রান্তিক চাষীদের কথা মাথায় রেখে লবণ নীতিমালা প্রনয়ন করবে চলতি বছর সরকারের সহায়তা ও লবণ চাষীদের পরিশ্রমের ফলে লবণ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে বাংলাদেশ।

শুক্রবার বিকালে কক্সবাজার শহরের তারকামানের এক হোটেলের সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনের (বিসিক) আয়োজনে ‘লবণ চাষ ও আয়োডিনযুক্তকরণ সার্বজনীন আয়োডিনযুক্ত লবণ’ শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন শিল্পমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ২০১৮-১৯ অর্থ অর্থবছরে লবণের চাহিদা ছিল ১৬ দশমিক ৫৭ লক্ষ মেট্রিক টন। ১৮ লক্ষ মেট্রিক টন উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা বিপরীতে মাঠে নেমে মৌসুম শেষে উৎপাদন হয়েছে ১৮ দশমিক ২৪ লক্ষ মেট্রিক টন। চাহিদা ও লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি লবণ উৎপাদন হওয়ায় বর্তমানে দেশে লবণের কোনো ঘাটতি নেই। আসন্ন ঈদুল আযহায় (কোরবানির ঈদে) চামড়া শিল্পে লবণ ব্যবহারের পরও সারা বছর উদ্বৃত্ত থাকবে। তাই দেশে লবণ আমদানির প্রশ্নই উঠে না। লবণ আমদানির কোনো প্রয়োজন নাই। উল্টো বাংলাদেশ থেকে লবণ রফতানির সময় এসেছে।

ফখরুলকে বেশি পাওয়ারের চশমা পরার পরামর্শ কাদেরের

0

দেশের উন্নয়নে বিএনপির গা জ্বালা করে বলেই প্রধানমন্ত্রীর চীন সফর নিয়ে তারা মিথ্যাচার করছে- এমন মন্তব্য করেছেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। সকালে ধানমন্ডিতে দলের সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ব্রিফিংয়ে তিনি এই মন্তব্য করেন। বিএনপি ক্ষমতায় থেকে দুর্নীতির চুক্তি করতো বলেই প্রধানমন্ত্রীর সফর নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।

তিনি বলেন, সরকার নয়; দেশের মানুষের বিরুদ্ধে কথা বলছে বিএনপি, এমন অভিযোগও করেন ওবায়দুল কাদের। যুদ্ধাপরাধী ও জামায়াতের বিষয়ে আওয়ামী লীগের অবস্থান পরিস্কার, এতে কোনও ঘাটতি নেই।

ক্রিকেট মাঠে আর দেখা যাবে না জিম্বাবুয়েকে

0

ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা আইসিসির নিয়মানুযায়ী, কোনো দেশের সরকার সেদেশের ক্রিকেট বোর্ডের উপর রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ করতে পারবে না। আর যদি কোনো বিষয়ে করেও থাকে, তবে সেই ক্রিকেট বোর্ড শাস্তি হিসেবে হারাবে আইসিসির সদস্যপদ। সেই সঙ্গে নিষিদ্ধ হতে হবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকেও। এবার সেই নিয়মের বেড়াজালে পড়ে ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হতে চলেছে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট। গত ২২ জুন জিম্বাবুয়ে সরকারের ক্রীড়া মন্ত্রণালয় দুর্নীতির অভিযোগ এনে সেদেশের ক্রিকেট বোর্ডকে ভেঙে দেয়। যা আইসিসির আইনের পরিপন্থী।

এ কারণেই, আইসিসি তাদের পরবর্তী সভায় ক্রিকেট বোর্ডের উপর রাজনৈতিক হস্তক্ষেপের অভিযোগ এনে জিম্বাবুয়েকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বহিষ্কার ঘোষণা করতে পারে। এদিকে ক্রিকেট থেকে জিম্বাবুয়ে যদি নিষিদ্ধ হয় তবে আসন্ন পুরুষ ও নারী টি-টোয়ন্টি বিশ্বকাপের কোয়ালিফায়ারে দলটির অংশ নেয়া পড়বে ঝুঁকির মুখে। যদিও জিম্বাবুইয়ান ক্রিকেটারদের এখন আশার আলো দেখাচ্ছে নেপাল ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। কেননা দেশ দুটির ক্রিকেট বোর্ড আইসিসি থেকে নিষিদ্ধ ঘোষিত হলেও তারা আইসিসির অধীনে এখনো ক্রিকেট ম্যাচ খেলতে পারছে।

উল্লেখ্য, গত মাসে দুর্নীতির অভিযোগে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ডের ম্যানেজিং ডিরেক্টর গিভমোর মাকোনিকে তার পদ থেকে বরখাস্ত করা হয়। দেশটির ক্রীড়া মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে জানায়, জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের সভাপতির পদে তাভেঙ্গোয়া মকুহলানির পুনরায় চার বছর মেয়াদে নির্বাচিত হওয়ার প্রক্রিয়া অস্বচ্ছ ও বোর্ডের নীতিবিরুদ্ধ। সে কারণে নতুন বোর্ড কমিটি নির্বাচনের আগ পর্যন্ত একটি অন্তর্বর্তী কমিটিও গঠন করে দেয় জিম্বাবুয়ে সরকার। বর্তমান কমিটির সদস্যরা হলেন ডেভিড এলমান-ব্রাউন, আহমেদ ইব্রাহিম, চার্লি রবার্টসন, সাইপ্রিয়ান মান্দেঙ্গে, রবার্টসন চিন্যেঙ্গেত্রে, সেকেসাই নোকওয়ারা এবং ডানকান ফ্রস্ট।

সর্বকালের সেরা দশে সাকিব

0

বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল খেলতে না পেরে হতাশ বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। দল পারেনি। কিন্তু বিশ্বকাপকে প্রজাপতির হাজার রঙে রাঙিয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। ব্যাটিং ও বোলিংয়ে আলোকিত করে সাকিব এখন ক্রিকেট মহাযজ্ঞের ‘পোস্টার বয়’। তিনি এখন ক্রিকেট বিশ্বের ‘সুপার ম্যান’। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় ‘বিজ্ঞাপন’।

তার ব্যাট ও বলের সৌকর্যে গোটা বিশ্ব চিনল নতুন এক বাংলাদেশকে। পাকিস্তান ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ শেষ সাকিবদের। বিশ্বকাপ শেষ হলেও বাকি সেমিফাইনাল, ফাইনাল। আইসিসি ঘোষণা করেনি বিশ্বকাপের ‘মোস্ট ভ্যালুয়েবল প্লেয়ার’ (এমভিপি)-এর নাম। তবে সেরা খেলোয়াড়ের তালিকায় সবার উপরে সাকিব। তিনি বিশ্বসেরা হবেন কি না, সময়সাপেক্ষ। কিন্তু বিশ্বকাপে যে কীর্তি গড়েছেন, তাতে সর্বকালের সেরা অলরাউন্ডারের তালিকায় স্যার ইয়ান বোথাম, ইমরান খান, কপিল দেব, স্যার রিচার্ড হ্যাডলি, জ্যাক ক্যালিসদের চেয়ে পিছিয়ে নয়, বরং উপরেই থাকবেন।

১৯৭৫ থেকে ২০১৯-১২ বিশ্বকাপে একমাত্র সাকিব ৫০০ রান ও ১০-এর উপরে উইকেট নিয়েছেন। পাকিস্তান ম্যাচের আগে আইসিসি সাকিবের একটি ছবি পোস্ট করে টুইট করেছে। সেখানে লিখেছে, ‘সাকিব এমন কিছু ক্রিকেটারের সঙ্গে বসে আছেন, যারা এই বিশ্বকাপে তার চেয়ে ভালো খেলেছে!’ আইসিসির টুইটটি আলোড়ন তুলেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। কারণ ছবিতে সাকিব কারও সঙ্গে বসে নেই। ছবিতে কারও সঙ্গে বসে নেই। বেঞ্চের দুই পাশ ফাঁকা। তাহলে? বাংলাদেশ পাকিস্তান ম্যাচের আগে পর্যন্ত যে তিনটি জয় পেয়েছে, সবগুলোর ম্যাচ সেরা সাকিব। পারফরম্যান্স বলছে চলতি বিশ্বকাপে তিনিই রাজা।

‘রেকর্ড বয়’ কাল একটি ক্যাচ ধরলেই নতুন একটি রেকর্ড গড়তেন। ৫ হাজার রান, আড়াইশ উইকেট ও ৫০ ক্যাচ নিয়ে নাম লিখতেন সনত জয়সুরিয়া, শহীদ আফ্রিদী ও জ্যাক ক্যালিসের পাশে। তার পরও যা করেছেন, তাতেই সর্বকালের সেরা অলরাউন্ডারদের তালিকায় সবার উপরের নামটি নিঃসন্দেহে সাকিবের। কাল মাত্র ৭ রান করলে ৩ নম্বর বা তার পরের পজিশনে ব্যাটিং করে সবচেয়ে বেশি রান করার একক মালিক হবেন। ৭ ইনিংসে তার রান ৫৪২। এই পজিশনে সবচেয়ে বেশি রান এখন পর্যন্ত শ্রীলঙ্কার মাহেলা জয়াবর্ধনের। ২০০৭ বিশ্বকাপে ১১ ম্যাচের ১১ ইনিংসে ৫৪৮ রান করেছিলেন লঙ্কান কিংবদন্তি। সাকিবের পেছনে কুমার সাঙ্গাকারা, রিকি পন্টিং, জ্যাক ক্যালিস, রাহুল দ্রাবিড়রা। ২০১৫ বিশ্বকাপে টানা চার সেঞ্চুরি হাঁকানো সাঙ্গাকারার রান ছিল ৫৪১,  ২০০৭ বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার পন্টিং ৫৩৯, দক্ষিণ আফ্রিকার ক্যালিস ৪৮৫, ১৯৯৯ বিশ্বকাপে দ্রাবিড় ৪৬১ রান করেছিলেন। বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল না খেলতে পারলেও সাকিব যে পারফরম্যান্সের দ্যুতি ছড়িয়েছেন, তাতে চির স্মরণীয় হয়ে থাকবেন ‘সুপার ম্যান’ সাকিব আল হাসান।

১৮ বছরের মধ্যে প্রথম ভুল!

0

সৌম্য আর দিব্য, বৃন্দাবন দাস ও শাহনাজ খুশি দম্পতির দুই যমজ সন্তান। যাদেরকে কখনোই আলাদাভাবে চেনা সম্ভব না। অন্তত আলাদা করে কেউ তাদের যে বুঝবে সে উপায় নেই। দুই জনের চেহারায় নেই পার্থক্য। তাই বলে মা কি চিনতে পারবেন না তা কি হয়? না এটা হয় না। মা ঠিকই চিনে ফেলেন কে সৌম্য আর কে দিব্য। কিন্তু ক’দিন আগে সৌম্য’র ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হওয়ার পর ১৮ বছরের মধ্যে প্রথম ভুলটা করে ফেললেন। নিজেই সোশ্যাল হ্যান্ডেলে সে কথা জানালেন খুশি।

শাহনাজ খুশি বলেন, আমার সৌম্য বাবন টার ডেঙ্গুজ্বর হয়েছিল। ডেঙ্গু জ্বর চলে গেলেও বেশ লম্বা সময় একই যত্নে(খেয়ালে) রাখতে বলেছে চিকিৎসক। ঔষধ তেমন কিছু না,এন্টাসিড/এলার্জি/আর মাল্টি ভিটামিন। ১ মাস চলবে। সে মতো সকাল থেকেই আমি যত্ন শুরু করি,সবাই উঠার অনেক আগেই বড় এক গ্লাস ভর্তি শরবত আর এন্টাসিডটা দিই।

তিনি বলেন, শুরু থেকেই তারা বছরে ১০ মাস আমাদের সাথে ঘুমায়,অসুস্থ হওয়াতে সে অধিকার আরও বেড়েছে। আমি আজ সকালে যথারীতি একজনকে গভীর ঘুম ভেঙে ডেকে তুলে বসিয়ে হাতে শরবত আর ঔষধ দিলাম। প্রথমে চোখই খোলে না,পরে সে প্রচণ্ড বিরক্ত হয়ে বললো,মা! আমি সৌম্য না,দিব্য প্লিজ!

শাহনাজ খুশি বলেন, ওদের বাবা ছোট বেলায় থেকে প্রায় চিনতে না পারার ভুল করে! কিন্তু আমি না! ১৮ বছরে আজ আমি প্রথম এ ভুল করলাম। অনেকক্ষন বোকা হয়ে বসে থাকলাম,মনে হল সৃষ্টির এক অদ্ভুত অধ্যায় সৃষ্টি এবং বহন করছি আমি!

কনস্টেবল ও নারী প্রহরীকে হাতেনাতে ধরলো পুলিশ

0

যশোরের বেনাপোলে ‘সানসিটি’ নামে একটি আবাসিক হোটেল থেকে এক পুলিশ কনস্টেবলকে যুবতীসহ আটক করেছে বেনাপোল পোর্ট থানার পুলিশ। শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার সময় তাদের আটক করে পুলিশ। আটক পুলিশ কনস্টেবলের নাম রবিউল ইসলাম। তিনি নাভারন হাইওয়ে পুলিশের কনস্টেবল এবং আটক যুবতীর (২৫) বাড়ি বেনাপোল পোর্ট থানার গাজিপুর গ্রামে এবং পিমা নামে একটি বেসরকারি সিকিরিউটি কোম্পানির নিরাপত্তা প্রহরী। পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বেনাপোল বাজারের সানসিটি নামে একটি হোটেলে অভিযান চালানো হয়। সেখানে একটি কক্ষের মধ্যে নাভারন হাইওয়ে পুলিশ কনস্টেবল রবিউল ইসলাম এবং বেনাপোল চেকপোস্টের আন্তর্জাতিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনালের নারী নিরাপত্তা প্রহরীকে আটক করা হয়।

স্থানীয়রা জানায়, ওই নারী স্বামী পরিত্যক্তা। তার একটি ৪ বছরের মেয়ে আছে। অভাব অনটনের সংসারে সামান্য বেতনে চাকরির পাশাপাশি তিনি অবৈধ কাজ করে থাকে বলে শোনা যায়। তার পৈত্রিক বাড়ি যশোরের পুলেরহাটে। বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের এসআই (উপ-পরিদর্শক) আব্দুল লতিফ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, তাদের ‘সানসিটি’ হোটেলের একটি কক্ষ থেকে হাতেনাতে আটক করা হয়।

এ ব্যাপারে নাভারন হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ এসআই রফিকুল ইসলাম বলেন, আমি বিষয়টি এসপি স্যারকে অবগত করেছি। তাকে আপাতত বরখাস্ত করা হবে। আইনগত দিক বিবেচনা করলে তার চাকরি থাকবে না বলে জানান তিনি।

হিন্দু না মুসলিম, সালিশে ঠিক হলো কোন স্ত্রী পাবেন স্বামীর লাশ

0

ঠাকুরগাঁও শহরের মুন্সিপাড়া এলাকায় বাবু ইসলামের মরদেহ হিন্দু ধর্মানুযায়ী সৎকার হবে নাকি ইসলাম ধর্ম মতে দাফন হবে এ নিয়ে সৃষ্টি হয় জটিলতা। লাশ নিয়ে দুই ধর্মের দুই স্ত্রী ও তাদের পরিবারের সদস্যের মধ্যে শুরু হয় টানা-হেঁচড়া। অবশেষে জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতাকর্মী ও স্থানীয়দের হস্তক্ষেপে দিনভর দফায় দফায় বৈঠক শেষে লাশ পেয়েছেন মুসলিম শরিয়তে বিবাহিত স্ত্রী আসমা খাতুন।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এফিডেভিটের মাধ্যমে স্ত্রী আসমা খাতুনের পরিবারের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হয় বলে জানিয়েছেন ঠাকুরগাঁও পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নুরুল ইসলাম নুরু। মৃত বাবু ইসলাম পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারী উপজেলার রাধানগর গ্রামের মৃত নুর ইসলামের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, ১০ বছর আগে দিনাজপুর থেকে ঠাকুরগাঁও এসে হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে জগদীশ চন্দ্র রায় ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে বাবু ইসলাম নাম ধারণ করেন। এরপর তিনি ঠাকুরগাঁও শহরের মুন্সিপাড়া এলাকার বাসিন্দা সিদ্দিক আলীর মেয়ে আসমা খাতুনকে বিয়ে করে শ্বশুরবাড়ি এলাকায় বাড়ি ভাড়া নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন।

বুধবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে হঠাৎ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে বাবু ইসলাম মারা যান। এ খবর পেয়ে তার প্রথম স্ত্রী মিনা রাণী (৩৫) দিনাজপুর থেকে ঠাকুরগাঁও শহরের মুন্সিপাড়া এলাকায় চলে আসেন। এসে তিনি জানতে পারেন তার স্বামী জগদীশ চন্দ্র রায় নাম পরিবর্তন করে বাবু ইসলাম হয়ে মুসলিম ধর্মের মেয়ে আসমা খাতুনকে বিয়ে করেছেন।

এরপর প্রথম স্ত্রী মিনা রাণী হিন্দু ধর্মানুযায়ী তার স্বামীর লাশ সৎকারের দাবি করেন। কিন্তু এতে আপত্তি জানান দ্বিতীয় স্ত্রী আসমা খাতুন ও তার পরিবারের সদস্যরা। পরে ঠাকুরগাঁও পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নুরুল ইসলাম নুরু, মহিলা কাউন্সিলর দ্রৌপদী দেবী আগরওয়ালা, ৮ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি ফরহাদ হোসেনসহ রাজনৈতিক নেতাকর্মী ও স্থানীয় ব্যক্তিরা উভয় পরিবারের সঙ্গে আলোচনা শেষে সর্বসম্মতিক্রমে মরদেহ ইসলাম ধর্ম মোতাবেক দাফনের সিদ্ধান্ত নেন।

এরপর এফিডেভিটের মাধ্যমে প্রথম স্ত্রী মিনা রাণী তার স্বামীর মরদেহ দ্বিতীয় স্ত্রী আসমা খাতুনের কাছে হস্তান্তর করেন। পরে মাগরিবের নামাজ শেষে শহরের মুন্সিপাড়া জামে মসজিদে জানাজা পড়ে মুন্সিপাড়া পারিবারিক গোরস্থানে বাবু ইসলামের মরদেহ দাফন করা হয়। ঠাকুরগাঁও পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর নুরুল ইসলাম নুরু বলেন, সর্বসম্মতিক্রমে ও দুই পরিবারের সঙ্গে আলোচনা করে দ্বিতীয় স্ত্রীর কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হয় এবং ইসলাম শরিয়ত মোতাবেক দাফন সম্পন্ন করা হয়।

অসুস্থ এরশাদ কে নিয়ে দুই স্ত্রীর কান্ড

0

৯০ বছর বয়সী সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদ বেশ কয়েক মাস ধরেই রক্তে সংক্রমণ ছাড়াও লিভার জটিলতায় ভুগছিলেন। গত ২২ জুন অসুস্থতা বাড়লে ঢাকার সিএমএইচে ভর্তি করা হয় এরশাদকে। পরে রোববার (৩০ জুন) সকালে তার অবস্থা আরও খারাপ হয়, দিতে হয় অক্সিজেন সাপোর্ট।

অন্যদিকে এরশাদের শারীরিক অসুস্থতার পর দুই বউ ঘটাচ্ছেন দুই কাণ্ড। আর এমন কাণ্ডে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে এরশাদের দুই স্ত্রীকে নিয়ে দেখা দিয়েছে আগ্রহ। সংবাদ মাধ্যমগুলোর কারণে প্রথম স্ত্রী রওশন এরশাদের হাসাপাতালে যাতায়াতের খবর পাওয়া গেলেও মিলছে না দ্বিতীয় স্ত্রী বিদিশার কোনো খবর।

যদিও এরশাদের অসুস্থতার পর থেকেই নিজের ফেসবুক পেজ থেকে বিভিন্ন ধরনের স্ট্যাটাস দিচ্ছেন বিদিশা। সেখানে তিনি দাবি করছেন, ‘এরশাদের সঙ্গে তাকে দেখা করতে দেওয়া হচ্ছে না এবং তার ছেলে এরিকও বাবাকে দেখতে পারছেন না।’

এদিকে ১ জুলাই সোমবার দুপুরে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন এরশাদের শয্যা পাশে বসে প্রায় ঘণ্টাখানেক কোরআন তেলাওয়াত করেছেন তার প্রথম স্ত্রী রওশন এরশাদ।

অন্যদিকে বিদিশা এক স্ট্যাটাসে প্রশ্ন করেছেন- ‘জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে কি এরিক তার বাবাকে দেখতেও পারবে না? পারবে না কি শেষবারের মতো একবার বাবা বলে ডাকতে?’

বিদিশার দাবি, ‘এরশাদের কাছ থেকে তাকে এবং তাদের একমাত্র পুত্র এরিককে দূরে সরিয়ে রাখছে একটি স্বার্থান্বেষী মহল। অন্যদিকে হাসপাতালে এরশাদের শয্যা পাশে ঘন ঘনই দেখা যাচ্ছে রওশন এরশাদ এবং ছেলে রাহগির আল মাহি এরশাদ সাদকে।’

সুত্র: বাংলাদেশ জার্নাল

সাম্প্রতিক

আন্তর্জাতিক

Welcome To Sarabanglahh

সারাবাংলা সারাক্ষণ.

বাংলাদেশ

আলোচিত মিন্নির ভাইরাল সেই x ভিডিও দেখুন।

<<<<বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হলেন জাতির ভাবি মিন্নি>>>>> বরগুনায় রিফাত হত্যা মামলায় স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিকে দিনভর জিজ্ঞাসাবাদের পর গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) রাত...

বিশ্বকাপে কেমন করলেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা?

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের হয়ে ব্যাট করতে নেমেছেন ১৪ জন। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মোট রান ২১৪৫। ৩টি সেঞ্চুরি ১১টি ফিফটি।...

ক্রিকেট মাঠে আর দেখা যাবে না জিম্বাবুয়েকে

ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা আইসিসির নিয়মানুযায়ী, কোনো দেশের সরকার সেদেশের ক্রিকেট বোর্ডের উপর রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ করতে পারবে না।...

সর্বকালের সেরা দশে সাকিব

বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল খেলতে না পেরে হতাশ বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। দল পারেনি। কিন্তু বিশ্বকাপকে প্রজাপতির হাজার...

Welcome To Sarabanglahh

সারাবাংলা সারাক্ষণ.

বিনোদন