Breaking News

মুনিয়া পাঁচ ও’য়াক্ত না’মাজ প’ড়তো, তাহাজ্জুদ প’ড়তো

গুলশান ফ্লাটে একা লাখ টাকার ভাড়া ফ্লাটে থাকতেন কুমিল্লার মুক্তিযোদ্ধার মে’য়ে কলেজ ছা’ত্রী মোসারাত জাহান মুনিয়া- সেই ফ্লাট থেকে তার ম’র”দে”হ উ’দ্ধার করা হয় গতকাল, এরপর থেকে একে একে বের আসছে র’হস্য। অ’ভিযোগের তীর তার ব’য় ফ্রেন্ড বসুন্ধরা গ্রুপের পরিচালক সোবহান আনভীরের দিকে।

ফেস দ্যা পিপল এর জনপ্রিয় লাইভ টকশো অনুষ্ঠানে মোসারাত জাহান মুনিয়ার বড় বোন নুসরাত জাহান তানিয়া বলেন, আমার বোন (মুনিয়া) পাঁচ ও’য়াক্ত না’মাজ পড়তো, তা’হাজ্জুদের না’মাজ পড়তো, সে কিভাবে আ’’ত্মহত্যা’ করে।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সাংবাদিক সাইফুর রহমান সাগর। অনুষ্ঠানটিতে আরো উপস্থিত ছিলেন আমাদের কুমিল্লার সম্পাদক শাহাজাদা এমরান। সঙ্গত, রাজধানীর গুলশানের একটি বিলাসবহুল ফ্ল্যাট থেকে মোসারাত জাহান মুনিয়া নামে এক কলেজ ছা’ত্রীর

ঝু’ল’ন্ত ম’র’দেহ উ’দ্ধার করেছে পু’লিশ। তিনি মিরপুর ক্যান্টনম্যান্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিলেন। সোমবার (২৬ এপ্রিল) সন্ধ্যার পর গুলশান ২ নম্বরের ১২০ নম্বর সড়কের ফ্ল্যাটটি থেকে ম’র’দে’হ’টি উ’দ্ধার করা হয়। তরুণীর বাড়ি কুমিল্লা শহরে।

মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) সকালে মুনিয়ার বাড়ি কুমিল্লা মনোহরপুর সোনালী ব্যাংকের পেছনে সেতারা সদনে গিয়ে দেখা যায় সুনশান নিরবতা। বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিকুর রহমান ও কাজী সেতারা বেগম দম্পতির তিন সন্তান। বড় ছেলে আশিকুর রহমান। মেজ মে’য়ে নুসরাত জাহান ও ছোট মে’য়ে মুনিয়া। মুনিয়ার বড় ভাই আশিকুর রহমান জানান, তিনি একটি ওষুধ কোম্পানিতে চাকরি করেন। তাদের বাবা- মা কেউ বেঁ’চে নেই। তার বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিকুর রহমান। মা সেতারা বেগম ছিলেন সোনালী ব্যাংকের ক’র্মকর্তা। মেজ বোন নুসরাত গৃহিণী। থাকেন কুমিল্লায়। ছোট বোন মুশরাত জাহান কুমিল্লা মডার্ন স্কুলের শিক্ষার্থী ছিলেন।

About Tahsin Rahman

Check Also

সহযোগিতা লাগলে বলবা, আমরা আছি এমন যারা বলেন তাদের প্রতি নুরের কিছু কথা

নুর এগিয়ে যাও ভাই, দেশের এ দুঃসময়ে তোমারা যা করতেছো দেশের মানুষ তোমাদের মূল্যায়ন করবে, …