Breaking News

পাঞ্জাবি টুপি পড়ার অপরাধে চাকরীচ্যুত হলেন সিলেট দুই প্রভাষক!

স্টাফ রিপোর্টার ৩৬০ আউলিয়ার পুণ্যভুমি সিলেটের জালালাবাদ ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের পদার্থবিদ্যা বিভাগের প্রভাষক আব্দুল হালিম এবং আইসিটি বিভাগের প্রভাষক মুজাহিদুল ইসলাম কে টুপি পাঞ্জাবি পড়ায় চাকরীচ্যুত করা হয়েছে।

গত নভেম্বর মাসে কলেজের নির্ধারিত সভায় তৎকালীন অধ্যক্ষ কর্নেল সোহেল উদ্দিন পাঠান সকল শিক্ষক কে উদ্দেশ্য করে বলেন, স্কুল এবং কলেজ শাখার শিক্ষকদের সাদা শার্ট কালো প্যান্ট পরিধান করে ক্যাম্পাসে আসতে হবে।

এই সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারেননি প্রভাষক আব্দুল হালিম ও প্রভাষক মুজাহিদ। উভয়েই সুন্নাতি পোষাকে ক্যাম্পাসে আসার দাবি জানান। এর পরিপ্রেক্ষিতে অধ্যক্ষ সোহেল উদ্দিন তাদের পোষাক পরিবর্তন এর জন্য কয়েক দফা চিঠি দেন এবং পোষাকের ব্যাপারে শর্ত জুড়ে দেন।

টুপি পাঞ্জাবি ছেড়ে শার্ট প্যান্ট না পরলে চাকুরি থেকে অব্যাহতি দেয়ারও হুমকি দেন অধ্যক্ষ কর্নেল সোহেল উদ্দিন। গতকাল বৃহস্পতিবারে অধ্যক্ষের বেধে দেয়া সেই শর্ত অমান্য করায় সুন্নাতি পোষাক অনুসরণকারী দুইজন প্রভাষক কে চাকুরী থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

বিষয়টির সাথে অন্য সকল শিক্ষকরা একমত পোষণ করলেও দুইজন শিক্ষক সিনিয়র লেকচারার মোহাম্মদ আবদুল হালিম (পদার্থবিজ্ঞান, কলেজ শাখা) এবং লেকচারার মোহাম্মদ মুজাহিদ (তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, কলেজ শাখা) এর তীব্র নিন্দা জানান এবং প্রয়োজনে চাকরি ছেড়ে দিতে হলেও সুন্নতি লেবাস না ছাড়ার পক্ষে তাদের অবস্থান পরিষ্কার করেন।

এর ই ফলস্বরুপ আজ তারা চাকরিচ্যুত। এপ্রিল মাস থেকে স্যার দের ক্যাম্পাস এ যেতে নিষেধ করা হয়েছে এবং বেতন ভাতা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। (ভুক্তভোগী সম্মানিত শিক্ষকদ্বয়ের সাথে কথা বলে বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছেন শিক্ষার্থীরা)

এ ব্যাপারে সদ্য অব্যহতি প্রাপ্ত প্রভাষক আব্দুল হালিম সাবেক এক ছাত্রের সাথে কথা বলার অডিও ফুটেজ সোশ্যাল মিডয়ায় ভাইরাল তা থেকে জানা যায় , ” নবীর সুন্নাহকে ধারন করার লক্ষ্যেই দীর্ঘ ১২ বছর ধরে নিয়মিত সাদা পাঞ্জাবি পায়জামা পড়ে কলেজে আসতাম। আমার সকল সহকর্মীর সাদা শার্টের সাথে মিল রেখে ইউনিফর্ম কে যথাযথ সম্মান করে সাদা পাঞ্জাবি পড়তাম। তাছাড়া, শিক্ষক নিয়োগের সময় পাঞ্জাবি পড়ার শর্তেই আমি এই প্রতিষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলাম। ”
জানা যায় কলেজে ৬ জন শিক্ষক পাঞ্জাবি পাজামা পরে আসতেন অন্যরা মেনে নিলেও করোনার এই দু:সময়ে উদ্ভট কারনের পরিপ্রেক্ষিতে কলেজের দুইজন প্রভাষক কে অব্যাহতির খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে ছাত্র-ছাত্রীরা ক্ষোভে ফেটে পড়ে এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে কলেজের এমন সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দার ঝড় ওঠে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশর সব ক্যান্টনমেন্ট কলেজগুলোতেই ধর্মীয় রীতির পোষাকে আগ্রহী শিক্ষকদের তাদের পোষাকের ব্যাপারে সবসময়ই ছাড় দেয়া হয়ে আসছে। এদিকে জালালাবাদ ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের সাবেক শিক্ষার্থীরা আজ শনিবার সকাল ১১টায় কলেজ গেটে শান্তিপূর্ণ মানববন্ধনের ডাক দিয়েছেন। আংশিক নিউজ ক্রেডিট dailyalokitovor. com

About Tahsin Rahman

Check Also

এবার তৃতীয় বিয়ের দাবি মাওলানা মামুনুল হকের

হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীর সেক্রেটারি মাওলানা মামুনুল হক তৃতীয় বিয়ের দাবি …