সাবেক স্ত্রী রুলি সহ তিন জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের- ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দেয়ার হুমকি

মৃত্যু যন্ত্রণায় বলেন রুলি গুন্ডাদের দিয়ে মেরেছে। অবশেষে সাবেক স্ত্রী রুলির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের। 
সিলেট জেলার গোলাপগঞ্জ থানার ঢাকাদক্ষিন ইউনিয়নের রায়গড় উকড়কান্দি গ্রামের আফতাব আলীর প্রথম পুত্র ঢাকাদক্ষিন ডিগ্রি কলেজের সাবেক মিলনায়তন সম্পাদক মিছবা উদ্দিনের রহস্যজনক মৃত্যুর প্রায়
১২ দিন পর গতকাল ৩রা আগস্ট সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী  ২য় আদালত সিলেট এ  মিছবা উদ্দিনের মা বাদী হয়ে মিছবা উদ্দিনের সাবেক স্ত্রী রুলি বেগম, তার বর্তমান স্বামী এবং একই থানার করগ্রাম আদমপাড়ার মৃত সমছু মিয়ার ছেলে এম কে শফি তালুকদার সহ অন্যান্য আসামীদের নামে মামলা দায়ের করেন। আদালত শুনানি শেষে  গোলাপগঞ্জ থানাকে তিন কার্যদিবসের মধ্যে এ বিষয়ে কোন মামলা হয়েছে কিনা জানাতে আদেশ দেন।
ঘটনার বিবরনে জানা যায় মিছবা উদ্দিন গত ১৪ জুলাই সকালে বাড়ি থেকে ব্যাংকে ও ১ নং আসামীর সাথে দেখা করার কথা বলে বের হয়ে যান পড়ে ঐদিন বাড়ি না ফেরায় মিছবা উদ্দিনের মোবাইল ফোন বন্ধ দেখায় সম্ভাব্য বিভিন্ন জায়গায় খুঁজ খবর নিতে থাকেন পরিবারের লোকজন।
এরপর ১৯ জুলাই গোলাপগঞ্জ ডাচবাংলা ব্যাংকের গার্ড মিসবাহ উদ্দিনের একটি ব্যাগ ব্যাংকে পাওয়া গেছে এসে নিয়ে যান জানান মিসবাহ উদ্দিনের পিতাকে। একইদিন সিলেট শহরের বন্দরবাজার পুলিশফাঁড়ি হইতে স্থানীয় মেম্বার ও পরিবারকে জানানো হয় মিসবাহ উদ্দিনকে আহত অবস্থায় পেয়ে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে খবর পেয়ে পরিবারের সদস্যরা গিয়ে দেখতে পান মিসবাহ উদ্দিন জখমি অবস্থায় হাসপাতালের ১১নং ওয়ার্ডে মৃত্যু যন্ত্রণায় কাঁতরাচ্ছেন তিনি কান্নাকাটি করে বলেন সাবেক স্ত্রী রুলী বড় নাট বল্টু খুলার প্লাস দিয়ে সারা শরীরে মারপিট করেন ও ডাক্তার রুলী একটি ইনজেকশন শরীরে পুশ করে। এরপর চিকিৎসারত অবস্থায় ২১ জুলাই বিকালে মিসবাহ উদ্দিন মারা যান।
মিসবাহ উদ্দিন মারা যাবার পর আসামিরা প্রকৃত ঘটনা আড়াল করিতে সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে যারা বিছার দাবি করেছেন তাদের সাথে নিজের আইডি ফেক আইডি দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ হুমকি ধামকি অব্যাহত রাখতে থাকে। কথায় কথায় হুমকি ধামকি দেয় মিসবা উদ্দিনের হত্যা নিয়ে কথা বললে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করা হবে। তাদের আচরণে অনেকে ন্যায় বিচারের দাবি করে মান সম্মান রক্ষার্থে নিরব থাকেন। এদিকে মামলা দায়েরের পর আদালতের সিদ্ধান্তে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে বলেন এবার তাহলে অপরাধীদের প্রশাসন খুঁজে বের করবে। মিসবাহ উদ্দিনকে পরিকল্পিত ভাবে যারা হত্যা করেছে তারা আইনের আওতায় আসবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.