হয়রানির আরেক নাম পাসপোর্ট অফিস !

0
426

লাইনে দাঁড়ানো থেকে ফাইল জমা সব জায়গাতেই টাকা লাগে। টাকা না দিলে একটি পাসপোর্ট পেতে গ্রাহকদের কত ঝামেলা পোহাতে হয়। সিলেট দক্ষিণ সুরমার আলমপুর বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসে ‘মার্ক সিন্ডিকেট’ করে চলছে ঘুষ বাণিজ্য।
সরেজমিনে ঘুরে দেখেছি আলমপুর পাসপোর্ট অফিস স্থানান্তর হওয়ার পরই এখানে গড়ে ওঠে স্থানীয় নতুন একটি দালাল চক্র। আবার পুরোনো অফিসের দালালরাও এখানে এসে ভিড় জমায়। পাসপোর্ট অফিস ঘিরেই দালালরা গ্রাহকদের কাছ থেকে আবেদন জমা নেয়। দালাল না ধরলে দ্রুত পাসপোর্ট হয় না। এসব দালালদের সঙ্গে পাসপোর্ট অফিসের ভেতরের কর্মকর্তাদের একটি যোগাযোগ আছে। তারা অহেতুক ভুল ধরে আবেদন নথি আটকিয়ে টাকা হাতাচ্ছে গ্রাহকদের কাছ থেকে।
কয়েকজন গ্রাহকের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, অফিসের কর্মকর্তা ও দালালদের মধ্যে একটি ঘুষ বাণিজ্যেও চেইন গড়ে তুলেছে।সকাল ৯ টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত আবেদন জমা নেওয়ার কথা। এখানে কোথাও কোনো টাকা নেওয়ার নিয়ম নেই। কিন্তু এই অফিসের প্রতিটি ঘাটে ঘাটে টাকা নেওয়াই যেনো এখনো নিয়মে পরিণত হয়েছে। আবেদন জমা দিতে দালাল ধরতে হয়, লাইনে দাঁড়ালে দ্রুত ভেতরে যেতে আনসার সদস্যদের ৫০ থেকে ২ শ টাকা দিতে হয়, ভেতরে আবেদনে ‘ভুল’ ধরে ১ হাজার থেকে ১২ শ টাকা করে নেওয়া হয়। ভেতরে এক লোক পাসপোর্ট অফিসের কর্মকর্তাদের নিযুক্ত দালাল। খোদ পাসপোর্ট অফিসের উপ-পরিচালকের মধ্যেই চলছে এই ঘুষ বাণিজ্য। তিনিও এই অনিয়মের টাকার ভাগ পান
পুলিশ ক্লিয়ারেন্স: পাসপোর্ট আবেদন জমা দেওয়ার পর আবেদন করা ব্যক্তির সম্পর্কে একটি তদন্ত রিপোর্ট প্রদান করে সিটিএসবি (মহানগর স্পেশাল ব্রাঞ্চ) পুলিশ ও জেলা ডিবি পুলিশ। এখানে প্রতিদিন শত শত আবেদন জমা পড়ে শুধু পুলিশ তদন্ত রিপোর্ট দেওয়ার জন্য।পুলিশ কর্মকর্তারা আবেদন খুলেই গ্রাহককে ফোন করে বলেন টাকা নিয়ে দেখা করতে। যিনি দেখা করেন, টাকা দেন, তারটা খুবই দ্রুত ক্লিয়ারেন্স পেয়ে যায়। যিনি নিয়মে চলতে চান , তাকেই তদন্তের নামে হয়রানিতে পড়তে হয়। হয়তো তার কোন সূত বের করবে পুলিশ, না হয় নথি আটকে রেখে হয়রানি করবে,,কয়েক দিন আগে আমার এক বন্ধুর ক্লিয়ারেন্সের জন্য তদন্ত এসে টাকা দাবি করে পরে আমি ওই পুলিশ কর্মকর্তাকে বলি আপনাকে কেন টাকা দেব সরকার আপনাকে বেতন দিয়ে রেখেছে উনি অনেক সময় কথা বলার পর শেষ পর্যায়ে উনাকে বলি
আপনাকে টাকা দিব কিন্তু আপনে রিসিট দিতে হবে উনি বলেন রিসিট কেন দিব তখন আমি বলি আপনে টাকা নিবেন রিসিট কেন দিবেন না এটা কোন কথা আপনে রিসিট না দিলে আপনাকে টাকা দেবনা আপনে কি করবেন করেন,,,মোট কথা হচ্ছে এই ভাবে প্রতিদিন শত শত মানুষ হয়রানি হচ্ছে,,,,,,,

মন্তব্য