জাতীয়

৫শ’ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে সিইসিকে চরমোনাই পীরের লিগ্যাল নোটিশ

Is Jennifer Aniston currently in a relationship?

বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশে মেয়র প্রার্থী সৈয়দ মুহাম্মাদ ফয়জুল করী‌মের ওপর হামলা নিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়ালের বক্তব্যকে দায়িত্বহীন ও কুরুচিপূর্ণ অ্যাখ্যায়িত করে ৫০০ কোটি ক্ষতিপূরণ চেয়ে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়েছে। নোটিশে তাকে পদত্যাগ করতেও বলা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২২ জুন) মেয়র প্রার্থী সৈয়দ মুহাম্মাদ ফয়জুল করী‌মের পক্ষে অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আব্দুল বাসেত প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে এ নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

নোটিশে বলা হয়, মুফতি সৈয়দ মুহাম্মাদ ফয়জুল করী‌ম বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী সৈয়দ পরিবারের সন্তান-ই নন; তিনি একজন ধর্মীয়, আধ্যাত্মিক, রাজনৈতিক ব্যক্তি এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমীর। দেশ ও বিদেশে লক্ষ লক্ষ ভক্ত ও অনুসারী রয়েছে তার।

নোটিশে আরও বলা হয়, ভোট কারচুপিতে বাঁধা দেওয়ার কারণে তার ওপর হত্যার উদ্দেশ্যে পরিকল্পিত হামলার বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সিইসির বক্তব্য দায়িত্বজ্ঞানহীন, অযাচিত, কুরুচিপূর্ণ, অমানবিক ও বেআইনী এবং অনৈতিক। যার ফলে চরমোনাই পীরের শারীরিক, মানসিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। তার মর্যাদা ও সুনামের অবর্ণনীয় ক্ষতি হয়েছে। তার আনুমানিক ক্ষতির পরিমাণ ৫০০,০০,০০,০০০/= (পাঁচশত কোটি) টাকা।

আরো পুড়ুনঃ  ছেলের মতোই কি মেয়রের চেয়ার হারাচ্ছেন জায়েদা?

নোটিশে বলা হয়, সাতদিনের মধ্যে উপরিউক্ত দায়িত্ব জ্ঞানহীন, কুরুচিপূর্ণ, বিবেকহীন, অনৈতিক বক্তব্য প্রত্যাহার করে ক্ষমা প্রার্থনা ও কৈফিয়ত দেবেন। পাশাপাশি জাতীয় দৈনিক পত্রিকা এবং প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় প্রকাশ করবেন। একই সময়ের মধ্যে আমার ক্ষতিপূরণ বাবদ ৫০০ কোটি টাকা প্রদান করে আপনি ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার’ পদ হতে পদত্যাগ করবেন। অন্যথায় প্রধান নির্বাচন কমিশনারের বিরুদ্ধে দেশের প্রচলিত আইনে উপযুক্ত আদালতে প্রয়োজনীয় সব ধরনের আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এর আগে বুধবার (২১ জুন) সকাল ১০টায় রাজধানীর বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটের সামনে গণমিছিলে বাংলাদেশের আমির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়ালের পদত্যাগে যা কিছু করতে হয় জনগণ তাই করবে।

আরো পুড়ুনঃ  এ দেশ কী তাদের বাপের তালুকদারি সিলেটে মির্জা ফখরুল ইসলাম

বলেন, আমাদের মেয়র প্রার্থীকে নিয়ে সিইসি যে মন্তব্য করেছেন তা কেউ বলেনি, কোনো সুস্থ মানুষ এমন মন্তব্য করতে পারে না। ফলে কোনো অসুস্থ মানুষ নির্বাচন কমিশনের মতো গুরুত্বপূর্ণ স্থানে থাকতে পারে না। এরপরও যদি তাকে রাখা হয় তাহলে তার পদত্যাগের জন্য যা কিছু করতে হয় জনগণ তাই করবে।

তিনি বলেন, এ সরকারের অধীনে কোনো সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না। তাই সরকারকে বলবো পদত্যাগ করে একটি জাতীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker