সারা দেশে যে শান্তি বইছে এর পেছনে কাজ করছে পুলিশ

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ‘১৫-২০ বছর আগে যে পুলিশ দেখেছিলেন, সেটির সঙ্গে বর্তমান পুলিশের অনেক পার্থক্য। এরা জীবন উৎসর্গ যেমন করে, আবার বুদ্ধিমত্তা দিয়ে ক্রাইম ডিটেকশনও করে।

তারা লোড নিতে পারছে। সারা দেশে যে শান্তি বইছে সেটার পেছনে কাজ করছে বাংলাদেশের পুলিশ। পুলিশ শুধু সিকিউরিটির জন্যই নয়, মানবিক কাজও করছে। করোনার সময় দেখেছেন, মায়ের লাশ ছেলে হাসপাতাল থেকে আনতে যায়নি। পুলিশ তার লাশ দাফন করেছে।’

শুক্রবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের চতুর্থ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গাজীপুর পুলিশ লাইন্সে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এসব কথা বলেন।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘গাজীপুরে এমন কোনও জায়গা নেই যেখানে কলকারখানা হয়নি। এটাকে যদি আমরা ইন্ডাস্ট্রিয়াল টাউন বলি, তাও বোধহয় কটূক্তি হবে না। এভাবেই ইন্ডাস্ট্রি এখানে ডেভেলপ করেছে এবং অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের কেন্দ্রবিন্দু তৈরি হয়েছে গাজীপুর।

আমরা সেজন্যই নিরাপত্তার জন্য গাজীপুর মেট্রোপলিটন সিটি করে শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য ২০০৮ থেকে ২০২২ পর্যন্ত ৮২ হাজার ৫৮৩টি নতুন পদ সৃষ্টি করে পুলিশ নিয়োগ দিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘আমরা তৈরি করেছি ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ। এর সুফল আমাদের ব্যবসায়ী ভাইয়েরা পাচ্ছেন। আমাদের শ্রমিক এবং উদ্যোক্তাদের সঙ্গে কিংবা মালিকদের সঙ্গে একটা ব্রিজ তৈরি করার জন্য আমরা সেটা তৈরি করেছিলাম।

আজকে কিন্তু সেই জায়গাটাই আমরা মনে করি পুরোপুরি না হলেও সফল হয়েছি। যে উদ্দেশ্য ছিল, ধীরে ধীরে সেই জায়গায় যেতে পেরেছি। আমরা অনেক পুলিশ ইউনিট করেছি। ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ, ট্যুরিস্ট পুলিশ, নৌ-পুলিশ, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। পিবিআইয়ের সুফল, যেটা সবাই পাচ্ছেন।’

মন্ত্রী বলেন, ‘পিবিআই ২২-২৩ বছর আগে যেসব হত্যাকাণ্ড বা অপরাধ সংঘটিত হয়েছিল, যেগুলোর ভুল ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছিল, সেগুলো কিন্তু আজকে আলোর পথে নিয়ে এসেছে এবং আমাদের জানিয়ে দিয়েছে আসল অপরাধী কারা ছিল। সেজন্যই আমরা মনে করি আমাদের উদ্দেশ্য সফল হয়েছে। আমরা অ্যান্টি-টেরোরিজম ইউনিট করেছি।

তারা দেশে জঙ্গিবাদ এবং সন্ত্রাস দমন করছে। বর্তমানে সাইবার ইউনিট করেছি। এখন সাইবার ক্রাইম এত বাড়ছে, সবাই অতিষ্ঠ হয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে আমাদের মেয়েরা সাইবার ক্রাইম নিয়ে সবসময় আতঙ্কে থাকে। সেজন্যই সাইবার ক্রাইম ইউনিট করেছি। আমার সবকিছুই করেছি জনগণের সেবা দেওয়ার জন্য। জনগণকে শান্তিতে রাখার জন্য।’

তিনি বলেন, ‘নিশ্চয়ই আপনারা ৯৯৯-এ কল করে সুফল পাচ্ছেন। যেখানেই যে কেউ বিপদে পড়েন ৯৯৯ ডায়াল করলেই অপর প্রান্ত থেকে পুলিশ চলে আসে। ৯৯৯-এর পুলিশ সদস্যরা ফোন পেয়েই ভিকটিমের কাছে গিয়ে হাজির হয়। আমরা এগুলো করছি জনগণকে সেবা দেওয়ার জন্য।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু নারী পুলিশ তৈরির জন্য আমাদের আহ্বান করে গিয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজকে নারীদের ক্ষমতায়নের কথা বলছেন এবং নারী পুলিশের জন্য আমাদের ইন্সট্রাকশন দিয়েছেন। আমরা নারী পুলিশ করেছি এবং সেখানেও সফলতার মুখ দেখছি। সেজন্যই বোধহয় আমার এগিয়ে যেতে পেরেছি।’

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোল্লা নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, স্বরাষ্ট্র ও জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব আখতার হোসেন, আইজিপি বেনজীর আহমেদ, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক আনিছুর রহমান প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.