নির্জন ঘরে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা, প্রেমিকার ‘ধ’র্ষণ মামলায়’ দশম শ্রেণিতে পড়ুয়া প্রেমিক কারাগারে

সহপাঠী প্রেমিকাকে নিয়ে একান্তে সময় কাটাতে নির্জন ঘরে গিয়ে জনতার হাতে আটক হয়েছে কিশোর প্রেমিক। শুধু তাই নয়,

ধরা পড়ার পর ‘প্রেমের ফাঁদে ফেলে ও বিয়ের আশ্বাসে ধর্ষণ’র মামলাও হয়েছে দশম শ্রেণিতে পড়ুয়া ওই প্রেমিকের বিরুদ্ধে।

শনিবার (১০ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় ভেদরগঞ্জ উপজেলার রামভদ্রপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের সত্যপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, সরদার বাড়ির ছোট একটি টিনের ঘরে ওই কিশোর ছাত্র-ছাত্রী ঢুকলে এলাকাবাসীর কাছে তাদের গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হয়। বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকাবাসী পুলিশকে খবর দেয়। পরে ভেদরগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক রাজিব ঘটনাস্থলে গিয়ে ছাত্র-ছাত্রীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

পরে ওই ছাত্রী বাদী হয়ে থানায় ধর্ষণ মামলা করে। স্থানীয় প্রবীণ হাজী মীর বকশ সরদার বলেন, তারা দুজন মাঝে মধ্যেই এই বাড়িতে আসে এবং দুই থেকে তিন ঘণ্টা সময় কাটায়।

অন্য দিনের মতো ঘটনার দিনও তারা সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে এসে এই বাড়ির ছোট একটি টিনের ঘরে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দেয়। এ সময় আশপাশের নারীরা আমাকে ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি রুবেল মীরকে বিষয়টি জানায়।

পরে, থানায় ফোন দিয়ে পুলিশকে জানানো হলে পুলিশ এসে আপত্তিকর অবস্থায় তাদের আটক করে থানায় নিয়ে যায়। এ বিষয়ে ভেদরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বাহালুল খান বাহার বলেন, তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক আছে। বিয়ের আশ্বাসে তারা শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে তাদের দু’জনকেই আটক করে থানায় নিয়ে আসে। পরে ওই স্কুলছাত্রী বাদী হয়ে থানায় একটি ধর্ষণ মামলা করে।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ২০০৩ সংশোধনী আইনের ৯/১ ধারা মোতাবেক ওই ছাত্রকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। আর ওই ছাত্রীকে মেডিকেল টেস্টের জন্য শরীয়তপুর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.