এবার নতুন ক্ষমতা চেয়েছে ইসি

আরপিওতে বলা আছে কোনো গুরুতর অনিয়মে নির্বাচন স্থগিত করতে পারে কমিশন। কিন্তু নির্বাচন বাতিল করার ক্ষমতা কিন্তু নেই।

অতীতে নির্বাচনে যা দেখেছি, যে ধরণের চ্যালেঞ্চ মোকাবেলা করতে হয়, তাহলে যদি ব্যাপক অনিয়ম হয়, তবে ভোট স্থগিত করে তো লাভ নাই। বাতিল করতে হবে।

তবে এজন্য তদন্ত হবে। যদি যথেষ্ট প্রমাণ থাকে সে ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে। এক্ষেত্রে বাতিল করে পুনরায় নির্বাচন করতে পারে। সেই ক্ষমতাটা আমরা চেয়েছি।

আজ রবিবার (২১ আগস্ট) নির্বাচন ভবনের নিজ দফতরে নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর সাংবাদিকদের কাছে এমন কথা বলেন। নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর বলেন, আমাদের যে আরপিও আছে,

তা সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য যথেষ্ট। তবে পরিবর্তিত পরিস্থিতি কিছু কিছু বিষয় স্পষ্ট করার আছে। নির্বাচন কমিশন যথেষ্ট শক্তিশালী। এই শক্তিটা যেন প্রয়োজনমত প্রয়োগ করতে পারে

সেই টুকু আমরা সংশোধনের জন্য দিয়েছি। তিনি বলেন, অনেকে বলেছেন এনিয়ে মহামান্য আদাতল আদেশে দিয়েছেন। তবে সেটা আইনের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করতে হয়। আমরা সেটাই করতে চাচ্ছি। এক সময় নাকি বাতিল করার ক্ষমতা ছিল, এখন নেই।

আমার ধারণা যখন এই ধরণের ক্ষমতা কমিশনের হাতে থাকবে, তাহলে তারা গায়ের জোরে যারা নির্বাচনে যেতে চায়, তখন তারা সাবধান হবে। কারণ তাদের যে ইনভেস্ট আছে, সেটা আর তারা করতে চাইবেন না। এই প্রস্তাব মহান সংসদে অবশ্যই পাশ হতে হবে। এটার ক্ষমতা তো ইসির নেই। এটা পাশ না হলে, বাতিল করতে পারবো না। তখন প্রতিরোধমূলক আরো অনেক কৌশল আরপিওতে দেওয়া হয়েছে। সেগুলো আমাদের প্রয়োগ করতে হবে।

আদমশুমারির গেজেট পেলে সীমানা পুনর্নির্ধারণ চূড়ান্ত করবে ইসি: মো. আলমগীর বলেন, আদম শুমারির প্রাথমিক রিপোর্ট পেয়েছি। গেজেট এখনো পাইনি। গেজেট পেলে আমাদের ফরমাল ওয়ার্ক শুরু হবে। সংসদীয় আসনের সীমান পুনর্নির্ধারণের জন্য ভৌগলিক অবস্থা, জনসংখ্যা ও প্রশাসনিক সুবিধার কথা আইনে বলা আছে। সেগুলো বিবেচনায় নিয়েই আমরা সিদ্ধান্ত নেবো। ব্যাপক পরিবর্তন হবে কি হবে না, তার কোনোটাই বলতে পারবো। আইনে যে ক্রাইটেরিয়া আছে, সেভাবেই হবে। জনসংখ্যাই যদি ঢাকায় বেড়ে থাকে, আসন বাড়বে। তবে এর সঙ্গে আবার ভোগলিক বিষয় ও প্রশাসনিক বিষয়টাও আসবে। যেমন মনে করেন একটা আসন এমন দেওয়া যাবে না, যেন দুইটা জেলার মধ্যে পড়ে। একটা আসন দুইটা উপজেলায় পড়ে গেছে, এইটা কিন্তু প্রশাসনিক অখণ্ডতা রক্ষা হয়নি। এগুলো আমরা দেখবো। এটার দাবি আছে। তবে মুখে মুখে আছে। এজন্য লিখিতভাবে দাবি জানাতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.