সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আ. লীগ ৫০টির বেশি আসন পাবে না: কর্নেল অলি

সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগ কিয়ামতের আগ পর্যন্ত কখনো ৫০টির বেশি আসন পাবে না বলে মন্তব্য করেছেন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) সভাপতি কর্নেল অলি আহমদ (অব.)।

গত বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবে এলডিপির আয়োজনে ‘দেশের সার্বিক পরিস্থিতি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

এলডিপি সভাপতি কর্নেল অলি আহমদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী এবার ভারত থেকে দুই কলসি পানি নিয়ে এসেছেন, এটাই বাংলাদেশের অর্জন। বিগত নির্বাচনগুলোর আগে ভারতে গিয়ে শেখ হাসিনা নির্বাচনে তাদের সমর্থনের আশ্বাস নিয়ে আসতেন। কিন্তু এবার তিনি সেই নিশ্চয়তা পাননি।

বিএনপির নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের প্রক্রিয়া চলছে জানিয়ে কর্নেল অলি বলেন, ১৯৭১ সালে আমরা যে স্বাধীন দেশ উপহার দিয়েছিলাম, সেই স্বাধীন দেশ এখন আর নেই ৷

আমরা আইয়ুব খান টিক্কা খানকে বলতাম স্বৈরাচার, এখন সে রকম স্বৈরতান্ত্রিক সরকার চলছে ৷ বিএনপির নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের প্রক্রিয়া চলছে ৷ যে কোনো দিন তারা একটা রূপরেখা দেবে ৷ এই রূপরেখার সঙ্গে আমরা একমত।

তিনি আরো বলেন, ২০০৯ সালের পর থেকে সরকার বিরোধী দলের মিটিং মিছিল নিয়ন্ত্রণের মধ্যে নিয়ে এসেছে। বঙ্গবন্ধু বাকশাল কায়েম করেছিল সংসদে বসে।

আর বর্তমান সরকার কোথাও না বসেই বাকশাল কায়েম করে ফেলেছে ৷ আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে কোথাও কোনো কথা বলা যায় না৷ প্রেসক্লাব ছাড়া বিরোধী দলগুলো কোথাও গিয়ে মিটিং করতে পারে না৷ পুলিশের অনুমতি নিতে হয়। রাজনীতিবিদরা এর জন্য দায়ী।

কর্নেল অলি জানান, বর্তমান সরকার ক্ষমতা থেকে সরে যাওয়ার পর তিন মাস যদি তত্ত্বাবধায়ক সরকার থাকে তারপরেও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না। কারণ বিচার বিভাগ থেকে শুরু করে সব জায়গায় আওয়ামী লীগের লোক বসিয়ে রাখা হয়েছে বলে মনে করেন তিনি। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগ কিয়ামতের আগ পর্যন্ত কখনো ৫০ টির বেশি আসন পাবে না বলেও দাবি করেন তিনি।

সভায় নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী ভারত থেকে খালি হাতে ফিরেছেন। কুশিয়ারার পানি এনেছেন, ১৫৬ কিউসেক। তা দিয়ে কতটুকু জমি চাষ হবে? তিস্তার কথা তুলতেই পারেননি। এর বাইরে উনি কিছু পাননি ৷

মান্নার অভিযোগ, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভারতে গিয়ে নির্বাচনে সাহায্য চেয়েছেন। কিন্তু তাতে কাজ হয়নি। প্রধানমন্ত্রীও একই আশায় ভারতে গেছেন। কিন্তু কাজ হয়নি।

মান্না বলেন, এইবার প্রথম আওয়ামী লীগ সরকার বুঝতে পেরেছে, পৃথিবীতে তার কোনো বন্ধু নেই। ভারতের একজন পূর্ণমন্ত্রীও প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাননি। উপমন্ত্রী অভ্যর্থনা জানাবার পরেও আমাদের প্রধানমন্ত্রী এয়ারপোর্টে নেচেছেন।

মান্না বলেন, মিয়ানমার আকাশসীমা লঙ্ঘন করে সীমান্তে গুলি ছোড়ে, মর্টার ছোড়ে ৷ তারপরও সরকার মিয়ানমারের সঙ্গে সমঝোতা করতে চায়, তাহলে আমাদের সঙ্গে নয় কেন?

এলডিপির মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, জামায়াতে ইসলামির সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা আবদুল হালিম, নয়া দিগন্ত সম্পাদক আলমগীর মহিউদ্দিন ও জাগপার সহ-সভাপতি রাশেদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.