শাওনের ফেসবুক আইডিতে যা পাওয়া গেলো

নারায়ণগঞ্জে বিএনপি’র নেতাকর্মীর সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত রাজা আহমেদ শাওন ওরফে শাওন প্রধান যুবদলকর্মী।

বহু আগ থেকেই যুবদলের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। শাওন নিজেকে যুবদলকর্মী হিসেবে পরিচয় দিতো। তার ফেসবুক আইডি ঘেঁটে এমন তথ্যই পাওয়া গেছে।

তাছাড়া বিএনপি ও যুবদলের নেতারা জানিয়েছেন, শাওন যে যুবদলের রাজনীতি করতো তার প্রমাণ হিসেবে দলীয় কর্মসূচিতে আমাদের সঙ্গে তার অসংখ্য ছবি আছে।

যার মধ্যে বেশকিছু ছবি সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এদিকে শাওনকে যুবলীগকর্মী দাবি করে মিছিল করেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। নিহতের ঘটনায় শাওনের পরিবার হ’ত্যা মামলা করেছে অজ্ঞাত ৫ হাজার জনকে আসামি করে।

ময়নাতদন্ত শেষে গভীর রাতে কড়া পুলিশ পাহারায় শাওনের জানাজা ও লাশ দাফন করা হয়েছে। নিহত শাওন যুবদলকর্মী: বৃহস্পতিবার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচিতে মিছিলের অগ্রভাগে ছিল শাওন। শুধু তাই নয়, পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ চলাকালে শহরের ২ নম্বর গেট এলাকায় পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়তে দেখা যায় শাওনকে।

এমন একটি ভিডিও ক্লিপিং এই প্রতিবেদকের হাতে এসেছে। শাওনের মৃত্যুর কিছুক্ষণ পর যুবদলের মিছিলে সামনের সারিতে থাকা শাওনের একটি ছবি সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়।

এতে দেখা যায়, চেক টি-শার্ট পরা শাওন মিছিলের অগ্রভাগে আছেন। টি-শার্টে একটি সানগ্লাস ঝুলানো। তার পাশে ছিল কেন্দ্রীয় যুবদলের সাবেক সদস্য সাদিকুর রহমানসহ অন্যরা। গতকাল সকালে নিহত শাওনের বড় ভাই ফরহাদের সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, আমরা তিন ভাই এক বোন ছিলাম।

শাওন সবার ছোট। তাই সে সবার আদরের ছিল। তাকে হারিয়ে মা পাগল প্রায়। কাল থেকেই বার বার সংজ্ঞা হারাচ্ছেন। ফরহাদ আরও বলেন, আমি এ হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু বিচার চাই। আমাদের জানা ছিল না শাওন বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিল।

বৃহস্পতিবার ছবি দেখার পর জানতে পারলাম সে যুবদল করে। শাওন প্রধানের বড় ভাই ফরহাদ প্রধান বলেছেন, আমরা ভিডিওতে দেখলাম ও সেদিন প্রোগ্রামে ছিল। কাশিপুরের বাংলাবাজার এলাকার যুবদল নেতা সাদেকুর রহমান সাদেক ভাইয়ের নেতৃত্বেই ও রাজনীতি করতো।

বাসায় আমরা জিজ্ঞেস করলে বলতো না। এর আগেও কয়েকবার সে বিএনপির কর্মসূচিতে গিয়েছে। আমরা তাকে শাসন করেছি। তারপরেও সে গোপনে রাজনীতি করতো।

ফরহাদ আরও বলেন, আমি সেদিন ঘটনাস্থলে ছিলাম না, কাজে ছিলাম। সেখান থেকে খবর পেলাম ও ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে আছে। সেখানে গিয়ে দেখি সে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা গেছে।

শাওনের ফেসবুক আইডিতে যা পাওয়া গেলো

শাওনের পরিবার সূত্রে পাওয়া তার ফেসবুক আইডি ঘুরে যুবদলের রাজনীতির সঙ্গে তার যুক্ত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে। shwan ahmed (রাজা)’ নামে তার ফেসবুক আইডির ‘বায়ো’তে শাওন লিখেছেন, ‘কর্মীর চেয়ে বড় কোনো পদ নাই, সাক্ষী দেহের ঘামে ভেজা নগরীর রাজপথ, ফতুল্লা থানা যুবদল জিন্দাবাদ।’

গত ৩১শে মে শাওনের ফেসবুকে দেয়া সর্বশেষ পোস্টে বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদ ও যুবদল নেতা সাদেকুর রহমানের একটি ছবি শেয়ার করেছেন।

ছবিটির ক্যাপশনে তিনি লিখেছেন, ‘নিশি রাতের ভোট চোরদেরকে বলে দিও ২০২৩ সালে আন্দোলনের মাধ্যমে জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠা করবো ইনশাআল্লাহ। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী যুবদল নারায়ণগঞ্জ জেলা।’

এ ছাড়া শাওনের আইডি ঘেঁটে সেখানে দেয়া দলীয় কর্মসূচিতে অংশ নেয়া তার বেশকিছু ছবি, ভিডিও ও নিজের নামে (রাজা প্রধান) করা পোস্টার দেখা গেছে। পোস্টারগুলোতে তিনি নিজেকে ফতুল্লা যুবদলকর্মী হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন।

কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদ জানিয়েছেন, শাওন যুবদলের সক্রিয় কর্মী ছিল। আমার সঙ্গে তার অসংখ্য ছবি আছে। শাওন প্রধান নাম হলেও রাজনীতিতে সে রাজা প্রধান নামে পরিচিত ছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.