লাইভে স্ত্রী-সন্তানদের সঙ্গে অনাকাঙ্ক্ষিত আচরণের ব্যাখ্যা দিলেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা

লাইভে স্ত্রী-সন্তানদের সঙ্গে অনাকাঙ্ক্ষিত আচরণের ব্যাখা দিলেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ওবায়দুল হক খান।

তিনি বলেন, টকশোর একটি অংশ ভাইরাল করে আমাকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্নসহ মানসিকভাবে আহত করা হয়েছে।

ঘটনা ব্যাখ্যা দিয়ে স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা বলেন, মূলত আমার স্ত্রী উচ্চ মাত্রার প্রেসারের রোগী।

রাত সাড়ে ৯ টার মধ্যে প্রেসার ও ঘুমের ওষুধ খেয়ে ঘুমাতে হয়। রাতে ঠিকমতো ঘুমাতে না পারলে সকালে প্রেসার ১৭০/১৮০ পর্যন্ত চলে যায়।

তিনি আরও বলেন, গত রাতে তিনি ওষুধ খেয়ে ঘুমিয়ে পড়লে বাচ্চাদের দু’ষ্টামিতে ঘুম ভেঙে যায়। এ অবস্থায় আমার স্ত্রী কাঁচা ঘুম থেকে উঠে আমার কাছে বাচ্চাদের দুষ্টামির অভিযোগ করতে ছিলেন।

আমি টকশো রেখে ওঠে আমার স্ত্রী ও বাচ্চাদের শান্ত করে ১মিনিট পর পুনরায় টকশোতে আমার অসমাপ্ত কথা বলছিলাম। কিন্তু এ রকম একজন প্রেসারের রোগী কথা ভাইরাল করার মতো কোন যুক্তি দেখি না।

ভিডিওটি ডিলেট করার আহ্বান জানিয়ে স্বেচ্ছাসেবক লীগের এ নেতা বলেন, যারা না বুঝে তাদের হাস্যের খোরাক হিসেবে ভিডিওটি ভাইরাল করেছেন তাদের প্রতি মানবিক কারণে ভাইরালকৃত পোস্টটি প্রত্যাহার করে মানবিক মানসিকতার পরিচয় দিন।

জীবন নিয়ে না খেলার অনুরোধ জানান স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ওবায়দুল হক খান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.