বিএনপির সমাবেশে নেতাকর্মীদের ঢল, প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দিবেন যিনি

রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিএনপির কর্মসূচিতে হামলার প্রতিবাদে ও খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ঢাকা মহানগরের ১৬টি স্থানে সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি।

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী আজ খিলগাঁও জোড়পুকুড় খেলার মাঠের পাশের সড়কে সমাবেশে করছে বিএনপি। বিএনপির সমাবেশে নেতাকর্মীদের ঢল পড়ছে, রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে নেতাকর্মীরা বাঁশের লাঠি ও ক্রিকেট খেলার স্ট্যাম্পে জাতীয় পতাকা টানিয়ে মিছিল নিয়ে সমাবেশে আসছেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) দুপুর ২টার কিছু সময় পর থেকে বিএনপি নেতাকর্মীরা ব্যানার, ফেস্টুন এবং লাঠি ও স্ট্যাম্পে জাতীয় পতাকা এবং দলীয় পতাকা টানিয়ে মিছিল নিয়ে সমাবেশ স্থলে আসতে শুরু করেন।

বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সমাবেশ স্থলে নেতাকর্মীদের উপস্থিতি বেড়ে যায়। এদিকে সমাবেশস্থলের আশপাশে পুলিশসহ ব্যাপক আইনশৃঙ্খলা বাহিনী উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে।

বিএনপির একটি সূত্র বলছে, রাজধানীর উত্তরা ও মিরপুর এবং বনানীতে সমাবেশে ও মোমবাতি প্রজ্বলন কর্মসূচিতে হামলার পর থেকে বিএনপি সর্তকতা অবলম্বন করে আসছে।

সেই কারণে গত দুই সমাবেশে (১৮ সেপ্টেম্বর, পল্টন ও ১৯ সেপ্টেম্বর, মহাখালী) লাঠিতে করে পতাকা টানিয়ে সমাবেশে এসেছে নেতাকর্মীরা। তারই ধারাবাহিকতা এই সমাবেশেও নেতাকর্মীরা একই পন্থা অবলম্বন করেছে।

তবে কেউ হামলা না করলে নেতাকর্মীদের আগ বাড়িয়ে বা কোনো উসকানিতে না পড়ার নির্দেশনা দেওয়া আছে বিএনপির পক্ষ থেকে। আর কেউ হামলা করতে এলে পাল্টা প্রতিরোধ গড়ে তোলারও নির্দেশনা দেওয়া আছে।

এর আগে গত ১৮ সেপ্টেম্বর পল্টনের সমাবেশে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, রাজধানীর সুবজবাগে বিএনপির সমাবেশ আছে। এটা আমরা এলাকা। সেখানে মিটিং করার জন্য অনুমতি চেয়েছি। অনুমতি না দিলেও মিটিং হবে। অনুমিত দিলে এক জায়গায় হবে। অনুমতি না দিলে একশ জায়গা হবে। কোনো কিছু ঘটলে তার দায়-দায়িত্ব প্রশাসনকে নিতে হবে।

সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখবেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এছাড়াও বিএনপি নেতা মির্জা আব্বাস, আব্দুস সালামের বক্তব্য রাখার কথা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.