আওয়ামী লীগ সরকারের পতন হচ্ছে কবে?

২০০৩ সালের ১৯ মার্চ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইরাক আক্রমণ করল। এক মাসের বেশি সময়ের এই যুদ্ধে অন্যতম আলোচিত নাম ছিল মোহাম্মদ সাইদ আল সাহাফ।

একতরফা এই যুদ্ধ তিনি একাই প্রায় জমিয়ে দিয়েছিলেন। ইরাক যুদ্ধের সময় তিনি ছিলেন তথ্যমন্ত্রী। যুদ্ধে তিনি সাদ্দাম হোসেনের মুখপাত্র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

প্রায় প্রতিদিনই তিনি টেলিভিশনে এসে চমকপ্রদ সব কথা বলতেন। তিনি বলতেন ‘খুব শিগগির মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পতন হচ্ছে। মার্কিনিরা পিছু হটছে।’

এমনকি মার্কিন নেতৃত্বাধীন যৌথবাহিনী যখন নিশ্চিত বিজয়ের পথে তখনো সাদ্দামের প্রিয়ভাজন মোহাম্মদ সাইদ বলছিলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের পতন ঘণ্টা বেজে গেছে। তারা পালানোর পথ পাবে না।’

২০০৩-এর ৯ এপ্রিল শেষবারের মতো টেলিভিশনের পর্দায় এসেছিলেন মোহাম্মদ সাইদ আল সাহাফ। তিনি বলেছিলেন, ‘মার্কিনিরা আত্মসর্মপণ করবে অথবা তারা তাদের ট্যাংক পুড়িয়ে দেবে।’

ওই সময়ে সাহাফের বক্তব্যে কট্টর ইরাকপন্থিরা কিছু সময় উল্লসিত হতেন। অলীক স্বপ্নে বিভোর হতেন। অনেক উগ্রবাদী ইরাকে গিয়ে যুদ্ধে অংশ নেওয়ার খোয়াবও দেখতেন।

সাহাফের কথন শুধু কিছু মানুষকে ক্ষণিকের জন্য বিভ্রান্ত করেছিল মাত্র। প্রায় কুড়ি বছর, এখন প্রায়ই ইরাকের তথ্যমন্ত্রীর কথা মনে পড়ে। মনে পড়ার প্রধান কারণ হলো ইদানীং বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ কয়েকজন নেতার বক্তব্য। বিএনপি এখন নানা ইস্যুতে আন্দোলন করছে। আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নানারকম সভা-সমাবেশ এবং বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে দলটি।

এসব কর্মসূচিতে মির্জা ফখরুল এবং তার সহকর্মীরা যেন ‘সাহাফ’-এর ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে। প্রতিদিন বিএনপি নেতারা বলছেন, ‘সরকারের পতন এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র।’ ‘আওয়ামী লীগের বিদায় ঘণ্টা বেজে গেছে’ ইত্যাদি। বিএনপি নেতাদের এই বক্তব্য শুনে নিজের অজান্তেই প্রশ্ন হলো, আওয়ামী লীগ সরকারের পতন ঘটছে কবে?

অবশ্য বিএনপি নেতাদের উজ্জীবিত বক্তব্যের পেছনে আওয়ামী লীগের কতিপয় মহাগুরুত্বপূর্ণ নেতা এবং মন্ত্রীর অপরিসীম অবদান রয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকারের কয়েকজন মন্ত্রী আছেন যাদের সাধারণ মানুষ এখন ‘বিএনপি-বিষয়ক মন্ত্রী’ হিসেবেই চেনেন। এদের প্রধান এবং একমাত্র কাজ হলো, বিএনপি নেতাদের বক্তব্যের সমালোচনা করা। বাহাস করা। বাহাস করতে করতেই আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতা মৃতপ্রায় বিএনপিকে নতুন জীবন দিচ্ছেন। নতুন জীবন পাওয়া বিএনপি এখন সরকারকে খাদের কিনারায় দেখছে। তারা বলছে, জনগণ ফুঁসে উঠছে।

একটি সরকারের পতন কয়েকভাবে হতে পারে। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় সরকার পরিবর্তনের প্রধান উপায় হলো নির্বাচন। আগামী ১৫ মাসের মধ্যে দেশে একটি সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। গত বুধবার (১৪ সেপ্টেম্বর) নির্বাচন কমিশন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের রোডম্যাপ ঘোষণা করেছে। ঘোষিত রোডম্যাপ অনুযায়ী আগামী বছরের নভেম্বরে নির্বাচনের তফসিল ঘোষিত হবে। ২০২৩-এর ডিসেম্বর অথবা ২০২৪-এর জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হবে নির্বাচন। এই রোডম্যাপ ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে বিএনপি বলেছে, তারা এই রোডম্যাপ মানে না। বিএনপি মহাসচিব বলেছেন, ‘এই সরকার অবৈধ।

অবৈধ সরকার গঠিত নির্বাচন কমিশনও অবৈধ’। বেশ ভালো কথা। তাহলে ‘অবৈধ সরকারে’র অবৈধ সংসদে বিএনপির এমপিরা কী করছেন? অবৈধ সরকারের কাছে কেন বেগম জিয়া মুক্তি প্রার্থনা করেন? দীর্ঘ ১৫ বছরের বেশি সময় ক্ষমতার বাইরে বিএনপি, নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া আগামী নির্বাচনে যাবে না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিএনপি কেবল নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেয়নি। বলেছে, এরকম নির্বাচন প্রতিহত করা হবে। ভারত সফর নিয়ে গত বুধবার সংবাদ সম্মেলন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওই সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন প্রসঙ্গেও কথা বলেন। তিনি বললেন, ‘সংবিধানের ধারা অব্যাহত রাখতে হবে।

সংবিধান অনুযায়ীই আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।’ তিনি পরোক্ষভাবে বিরোধী দলের দাবি নাকচ করে দিয়ে বলেন, ‘কে নির্বাচন করবে, কে করবে না, এটা তাদের ব্যাপার।’ অর্থাৎ আগামী নির্বাচনে সব দল অংশগ্রহণ করবে কী করবে না, এ নিয়ে রাজনীতিতে একটা অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হয়েছে। আগামী ১৫ মাসে এই অনিশ্চয়তা কীভাবে দূর হবে তা দেখার বিষয়। অন্য নির্বাচনগুলোর চেয়ে আগামী নির্বাচন নিয়ে কূটনৈতিক মহলের আগ্রহ বেশি। দেড় বছর আগে থেকেই তারা মাঠে নেমেছে। যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ পশ্চিমা দেশগুলো জানিয়ে দিয়েছে তারা বাংলাদেশে আগামী নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক, অবাধ ও সুষ্ঠু দেখতে চায়। যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, ‘আগামী নির্বাচনে যেন জনমতের প্রতিফলন ঘটে।’ এরকম পরিস্থিতিতে বিএনপিকে ছাড়া নির্বাচন আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে কতটা গ্রহণযোগ্য হবে, সেটিও এক বড় প্রশ্ন। বিএনপি নেতারা বলছেন, আগে সরকারের পতন, তারপর নির্বাচন। তাহলে, নির্বাচনের মাধ্যমে বিএনপি ক্ষমতা পরিবর্তন চায় না?

ক্ষমতা বদলের আরেকটি উপায় হলো গণঅভ্যুত্থান। গণআন্দোলন। যেভাবে জাতির পিতার নেতৃত্বে বাঙালি জাতি আইয়ুব খানের পতন ঘটিয়েছিল। দুই নেত্রীর নেতৃত্বে ১৯৯০ সালে এরশাদের পতন হয়েছিল। ১৯৯৬ সালে তীব্র গণআন্দোলনের মাধ্যমে বেগম জিয়া তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কাছে ক্ষমতা ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছিলেন। বাংলাদেশের রাজনীতিতে আওয়ামী লীগই একমাত্র রাজনৈতিক দল যারা কখনো আন্দোলনের মাধ্যমে বা গণঅভ্যুত্থানে ক্ষমতা হারায়নি। আওয়ামী লীগকে দুবার ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে অবৈধভাবে ক্ষমতাচ্যুত করা হয়েছে। একবার আওয়ামী লীগ শান্তিপূর্ণ গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ক্ষমতা হস্তান্তর করেছে।

১৯৫৪ সালের ২০ মার্চ নির্বাচনে হক ভাসানী-সোহরাওয়ার্দীর নেতৃত্বে যুক্তফ্রন্ট গঠিত হয়। যুক্তফ্রন্টে আওয়ামী লীগ প্রধান দল ছিল। নির্বাচনে ৩০৯টি প্রাদেশিক পরিষদের আসনের মধ্যে ২৩৭টি ছিল মুসলিমদের জন্য। যুক্তফ্রন্ট এর মধ্যে ২২৩টিতে জয়লাভ করে। মুসলিম লীগ পায় মাত্র ৯টি আসন। অমুসলিম আসনে কংগ্রেস ২৫টি, তফসিলি ফেডারেশন ২৭টি, যুক্তফ্রন্ট ১৩টি আসন পায়। এই নির্বাচনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ বৃহত্তম রাজনৈতিক দল হিসেবে জনরায় পায়। আওয়ামী লীগ সবচেয়ে বেশি আসন পেলেও শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হক ৩ এপ্রিল গঠিত তাঁর প্রথম মন্ত্রিসভায় আওয়ামী লীগের কাউকেই রাখেননি। এক মাস পর ১৯৫৪-এর ১৫ মে মন্ত্রিসভা সম্প্রসারণ করা হলে আওয়ামী লীগ থেকে সাতজনকে মন্ত্রী করা হয়। কিন্তু এই মন্ত্রিসভা ছিল কয়েক দিনের। আদমজীতে দাঙ্গার অজুহাত দেখিয়ে ৩০ মে ৯২ (ক) ধারা জারি করে ক্ষমতাচ্যুত করা হয় যুক্তফ্রন্ট সরকারকে। জারি করা হয় গভর্নর শাসন।

সত্তরের নির্বাচনে গোটা বাংলাদেশ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হয়। নির্বাচনে ঐতিহাসিক জয় পায়। কিন্তু নির্বাচনে জিতেও আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় যেতে পারেনি। ’৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে আমরা পাই স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। স্বাধীন বাংলাদেশে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতাচ্যুত করা হয় জঘন্য নৃশংসতার মাধ্যমে। ’৭৫-এর ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করে একাত্তরের পরাজিত শক্তি।

১৯৯৬ সালে দীর্ঘ ২১ বছর পর ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ। পূর্ণ মেয়াদে দায়িত্ব পালন করে ২০০১ সালের জুলাইয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রধান বিচারপতি লতিফুর রহমানের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করে আওয়ামী লীগ। এটাই ছিল বাংলাদেশে প্রথম শান্তিপূর্ণ এবং গণতান্ত্রিক রীতিতে ক্ষমতার হাতবদল। অর্থাৎ আন্দোলন করে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতাচ্যুত করতে হলে ইতিহাস সৃষ্টি করতে হবে বিএনপিকে। এরকম আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য নেতা লাগে। বিএনপির নেতা কে? এরকম আন্দোলন গড়ে তুলতে সংগঠন লাগে। সে রকম সংগঠন কোথায়?

’৭২ থেকে ’৭৫, জাসদ, গণবাহিনী আওয়ামী লীগ সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করেছে। জ¦ালাও-পোড়াও করেছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাড়ি ঘেরাওয়ের নামে সন্ত্রাসী তান্ডব চালিয়েছে। গণবাহিনীর নামে নির্বিচারে হত্যা করেছে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের। কিন্তু এসব বিপথগামিতা কেবলই ষড়যন্ত্রকারীদের পথ প্রশস্ত করেছে। জাসদের বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রের হঠকারিতা আওয়ামী লীগকে ক্ষমতা থেকে হটাতে পারেনি। ’৯৬-এ আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে নানা ইস্যুতে আন্দোলন করেছে বিএনপি-জামায়াত জোট। কিন্তু সেই আন্দোলনে ছিল না কোনো কারণ। পাশে ছিল না জনগণ। ২০১২ সালে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধে আন্দোলন হয়েছে আওয়ামী লীগ সরকারের বিরুদ্ধে। সাঈদীকে চাঁদে দেখা গুজব ছড়িয়ে সারা দেশে তান্ডব ছড়ানো হয়েছে। কিন্তু এতে আওয়ামী লীগ সরকারের ওপর কোনো চাপ আসেনি। ২০১৩ সালে বেগম জিয়া নির্দলীয়-নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে লাগাতার আন্দোলন শুরু করেছিলেন। ২০১৪-এর ৫ জানুয়ারি নির্বাচন প্রতিহতের ডাক দিয়েছিলেন।

আশা করেছিলেন, এতেই আওয়ামী লীগ সরকারের পতন হবে। জ্বালাও-পোড়াও, অবরোধ-হরতাল করেও সরকার টলাতে পারেননি বেগম জিয়া। বন্ধ করতে পারেননি সাংবিধানিক প্রক্রিয়া। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর নিজেই আন্দোলনের সমাপ্তি ঘোষণা করেন বেগম জিয়া। ২০১৪-এর নির্বাচন ছিল আসলে সাংবিধানিক দায় পূরণ। দেড় শর বেশি আসনে একক প্রার্থী ছিলেন। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন তারা। অনেকেই মনে করেছিলেন, এটি আসল নির্বাচন নয়। কদিন পরে মূল নির্বাচন হবে। এ কারণে কিছু অতি-উৎসাহী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে মরিয়া হয়ে ওঠেন। তা না হলে এই নির্বাচন আরও প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হতে পারত। ২০১৪-এর নির্বাচনের পর অধিকাংশ রাজনীতিবিদ আরেকটি সাধারণ নির্বাচনের জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিলেন। বেগম জিয়াও সম্ভবত নিশ্চিত ছিলেন স্বল্প সময়ের মধ্যে নতুন নির্বাচন হবে। এ কারণেই ওই নির্বাচনের বর্ষপূর্তি উপলক্ষে তিনি লাগাতার অবরোধের ডাক দেন। নিজে অবস্থান নেন গুলশানে তার ব্যক্তিগত কার্যালয়ে। গাড়িতে আগুন, গানপাউডার দিয়ে মানুষ পোড়ানোর পরও সরকার পতন হয়নি। বিএনপিই উল্টো খাদের কিনারায় চলে গেছে। সে সময় বিএনপি চেয়ারপারসন সরকার পতনের দিনক্ষণ ঠিক করে দিয়েছিলেন। কিন্তু ওই ভুল আন্দোলনে তিনি নিজেই রাজনীতি থেকে বিদায় নিয়েছেন।

২০১৮-এর নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করেছিল বিনা শর্তে। অস্তিত্বের প্রয়োজনে। ড. কামাল হোসেনকে নেতা মেনে তারা ‘ভোট বিপ্লব’ করতে চেয়েছিল। ২০১৮-এর নির্বাচন ছিল আমলাদের ষড়যন্ত্র। সরকারের ঘাড়ে সওয়ার হয়ে ছড়ি ঘোরানোর জন্য তারা একটি সুন্দর নির্বাচনের সম্ভাবনা তছনছ করে দেন। আওয়ামী লীগ প্রকাশ্যে যাই বলুক, একান্তে নিজেরাও স্বীকার করে, ওই নির্বাচন ছিল ‘ভুতুড়ে নির্বাচন’। আমি এখনো বিশ্বাস করি, ২০১৮-তে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হলেও আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করত নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়েই। ইতিহাস এক দিন নিশ্চয়ই এই নির্বাচন মূল্যায়ন করবে। যারা দেশে গণতন্ত্র চান না, বিরাজনীতিকে লালন করেন, তারাই ২০১৮-এর নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছেন। ওই নির্বাচনের পর বিএনপি ন্যূনতম আন্দোলন করতে পারেনি। নির্বাচনের ফলাফলকে প্রত্যাখ্যান করেছিল। আবার জাতীয় সংসদেও গেছে। এখন বিএনপি নির্বাচনের ১৫ মাস আগে সরকার পতনের ডাক দিচ্ছে। আন্দোলন করে কি আওয়ামী লীগকে হটানো যাবে? ইতিহাস বলে না। কারণ, আওয়ামী লীগই বাংলাদেশের একমাত্র সংগঠন যেটি তৃণমূল পর্যন্ত বিস্তৃত। এই তৃণমূলই আওয়ামী লীগের শক্তি। যে কোনো সংকটে এরা রুখে দাঁড়ায়। গত ১৩ বছরে আওয়ামী লীগের যেমন অনেক অর্জন আছে, তেমনি অনেক ব্যর্থতাও আছে। এই সময়ে আওয়ামী লীগে সুযোগ সন্ধানীদের মেলা বসেছে। আওয়ামী লীগার হয়ে অনেকে বেশুমার অর্থসম্পদের মালিক হয়েছেন।

কয়েকজন চিহ্নিত ব্যক্তি অর্থ পাচার করে ব্যাংকগুলোকে প্রায় ফোকলা বানিয়ে দিয়েছেন। কিছু অযোগ্য দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্ত্রীর কারণে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, বিদ্যুৎ সংকটসহ নানা সংকট সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু এসব ব্যর্থতা সত্ত্বেও গত ১৩ বছরে আওয়ামী লীগ বাংলাদেশকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছে। আওয়ামী লীগে একজন শেখ হাসিনা আছেন। যিনি অসম্ভব সাহসী, দূরদর্শী এবং জনদরদি। একজন নেতা একাই কি অসাধ্য সাধন করতে পারেন, তার সবচেয়ে বড় উদাহরণ শেখ হাসিনা। সবচেয়ে বড় কথা হলো, এ দেশের সিংহভাগ মানুষ তাঁকে বিশ্বাস করে। তাঁর ওপর আস্থা রাখে। এই মুহূর্তে তাঁর কোনো বিকল্প নেই। এ দেশের বড় একটা জনগোষ্ঠী মনে করে, শেখ হাসিনা না থাকলে এই দেশ অচল হয়ে যাবে। মুখ থুবড়ে পড়বে। মৌলবাদীরা দেশটা শকুনের মতো ছিঁড়ে-খুঁড়ে খাবে। বাংলাদেশ একটা আফগানিস্তান হয়ে যাবে। এ কারণেই এ দেশের মানুষ এসব আন্দোলনে গা মাখে না। সংকটে হতাশ হয়, কিন্তু ক্ষুব্ধ হয় না। আশায় বুক বাঁধে। এদের অধিকাংশ মানুষই মনে করে ‘অন্ধকার যতই গভীরে হোক, ভোর আসবেই’। একজন শেখ হাসিনা আছেন- এ জন্যই আওয়ামী লীগকে আন্দোলনের মাধ্যমে হটানো যাবে না। চা শ্রমিক থেকে ভূমিহীন। খেতমজুর থেকে ব্যবসায়ী।

নারী, পুরুষ, শিশু। সবার আস্থার জায়গার নাম শেখ হাসিনা। এ কারণেই সরকারের পতনের দাবিতে গণজোয়ার হয় না। এটা বিএনপির নেতারাও ভালো করে জানেন। দলীয় কর্মীদের সেøাগান আর ঝালমুড়ির উৎসবে সরকার পতন হয় না। জনগণ লাগে। বিএনপির আন্দোলনের কর্মী আছে, জনগণ নেই। একটি সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করার আরেকটি উপায় আছে। অবৈধ পন্থা এবং ষড়যন্ত্র। যেভাবে ’৭৫-এ আওয়ামী লীগকে ক্ষমতাচ্যুত করা হয়েছিল। যেভাবে ২০০৭ সালের এক-এগারোর সময় আওয়ামী লীগের ক্ষমতায় যাওয়াকে বিলম্বিত করা হয়েছিল। তাহলে আওয়ামী লীগের বিদায় ঘণ্টা বেজে গেছে বলে কি বিএনপি নেতারা সেই ষড়যন্ত্রের বার্তাই দিচ্ছেন?

নির্বাচন যেমন ক্ষমতাবদলের একমাত্র সাংবিধানিক পন্থা, তেমনি ‘নির্বাচন বন্ধ’ অবৈধ পন্থায় ক্ষমতা দখলের সবচেয়ে বড় অসাংবিধানিক পথ। দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন যেন না হয় সে জন্য একটি মহল তৎপর। বিএনপির হুমকি জাতীয় পার্টির অস্থিরতা, ১৪ দলের কারও কারও আহাজারি একসূত্রে গাঁথা। কিছুদিন আগে সুশীল সমাজের পন্ডিতগণ ঘোষণা করেছিলেন, বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কা হবে। এখন তারা তাদের হৃদয় এবং মস্তিষ্ক উৎসর্গ করেছেন নির্বাচনে। আগামী নির্বাচন যেন না হয় সে জন্য নানারকম তৎপরতা চলছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো কেন এত আগে থেকে নির্বাচন নিয়ে মাথার ঘাম পায়ে ফেলছে? এসব কিছু ‘পাজল গেমে’র মতো। রাজনীতি এখন মাঠে নেই। দাবার ছকে বন্দি হয়ে গেছে। আরও নির্দিষ্ট করে বলা যায় প্রাসাদ ষড়যন্ত্রেই এখন আওয়ামী লীগকে ক্ষমতাচ্যুত করার মহাপরিকল্পনা সাজানো হচ্ছে। বিএনপি নেতারা হয়তো সেই আশাতেই ‘পতন’

‘পতন’ বলে চিৎকার করছেন। কিন্তু বারবার ষড়যন্ত্রে ক্ষতবিক্ষত শেখ হাসিনা এখন ষড়যন্ত্রের গন্ধ আগেই টের পান। এ জন্য জনগণকে আগাম সতর্কবার্তাও দিয়ে রেখেছেন। গত ১৩ বছরে বাংলাদেশের কিছু মৌলিক পরিবর্তন হয়েছে। দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র করে সরকার উচ্ছেদ এখন সহজ রেসিপি নয়। বলে-কয়েও ষড়যন্ত্র হয় না। মির্জা ফখরুল ইসলাম ষড়যন্ত্রের সেই পুরনো খেলায় মগ্ন হয়ে গেছেন। রাস্তায় জ্বালাও-পোড়াও হবে। আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টি হবে। তৃতীয় শক্তি ক্ষমতা নেবে।

হরতাল-অবরোধ যেমন আন্দোলনের অস্ত্র হিসেবে অচল হয়েছে, তেমনি ষড়যন্ত্রের এই ফর্মুলাও বস্তাপচা হয়ে গেছে। কিন্তু আমার শঙ্কা মির্জা ফখরুল এবং বিএনপি নেতাদের নিয়ে। আগে তারা রোজার পর, ঈদের পর, শীতের পর, বর্ষার পর আন্দোলনের ঘোষণা দিতেন। এখন তারা সরাসরি আওয়ামী লীগ সরকারের পতনের ঘোষণা দিচ্ছেন। শীত-বসন্তে যেমন আন্দোলন হয়নি, তেমনি যদি এবার আগাম ঘোষণাতেও সরকারেরও পতন না হয় তাহলে তারা আর রাজনীতিবিদ থাকবেন কি? ইরাকের সাইদ আল সাহাফকে শেষ দিকে বলা হতো ‘কমিক আলি’ (বাগদাদ বব)। মির্জা ফখরুলের মতো ব্যক্তিরা যদি শেষ পর্যন্ত তেমন উপাধি পান তাহলে রাজনীতির কী হবে?

লেখক : নির্বাহী পরিচালক, পরিপ্রেক্ষিত।

সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.