মাত্র ১৯ বছর বয়সে ভ’য়ঙ্কর হয়ে ওঠেছেন তন্নী আক্তার

অ’পহরণকারী চক্রে ঢুকে মাত্র ১৯ বছর বয়সে ভ’য়ঙ্কর হয়ে ওঠেছেন মোছা. তন্নী আক্তার নামের এক তরুণী। সিলেট বিভাগের হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং থেকে এক

কিশোরীকে অ’পহরণ করে নারায়নগঞ্জে নিয়ে যান। তবে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (র‍্যাব)-৯ এর তৎপরতায় শেষ পর্যন্ত ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়েছে। সেই সঙ্গে অ’পহরণকারী চক্রের নারী সদস্য তন্নীকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব।

র‍্যাব-৯ এর মিডিয়া শাখা জানায়, বানিয়াচং উপজেলার ত্রিকরমহল্লা গ্রামের রিতু আক্তার (১৩) নামের কিশোরীকে তন্নী অ’পহরণ করে নিয়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় রিতু আক্তারের পিতা বাদি হয়ে গতকাল সোমবার (৭ জুন) বানিয়াচং থানায় মামলা (নং-১০) দায়ের করেন।

মামলা দায়েরের পর মেজর সৌরভ মো. অসীম শাতিল ও সিনিয়র এএসপি এ.কে.এম কামরুজ্জামানের নেতৃত্বে র‍্যাব-৯ এর একটি দল অভিযান চালিয়ে নারায়নগঞ্জ জেলার রুপগঞ্জ থানাধীন ২৮৬ নং উত্তর মাসাবোর মো. আমিনুল ইসলাম ভূইয়ার বাড়ি থেকে

অ’পহরণকারী তন্নীকে গ্রেফতার ও ভিকটিম রিতুকে উদ্ধার করে। তন্নী বানিয়াচং উপজেলার মিয়াখানী গ্রামের শামীম মিয়ার স্ত্রী। পরে তন্নীকে বানিয়াচং থানায় হস্তান্তর করেছে র‍্যাব-৯, জানা যায় তন্নির বয়স মাত্র ১৯ বছর হলে টাকার লোভে সে এই বয়সে নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ে ।

তন্নি অ’পহরণকারী একটি চক্রের সাথে সে দীর্ঘ দিন থেকে জড়িয়ে কাজ করে যাচ্ছে। তন্নির অন্যান্য অপরাধ তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানান তদন্তকারী কর্মকর্তা, তদন্তকারী কর্মকর্তা জানান সব কিছু সামনে নিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে তদন্তে যা আসবে তাই প্রকাশ করা হবে আপাতত তদন্ত করে সিওর না হওয়া পর্যন্ত অন্যান্য অপরাধ নিয়ে কথা বলতে চাননা।

১৩ বছর বয়সের রিতুকে নিয়ে যাবার পর তার বাবার অভিযোগে সাথে সাথে র‍্যাব-৯ এর একটি দল অ’পহরণকারী তন্নীকে গ্রেফতার ও ভিকটিম রিতুকে উদ্ধার করে। মেজর সৌরভ মো. অসীম শাতিল ও সিনিয়র এএসপি এ.কে.এম কামরুজ্জামানের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করা হয়।