কিছু কিছু পোস্টের ক্যাপশন প্রয়োজন হয়না- মানবতার এক বিরল নিদর্শন

এক যুগ ধরে অটোরিকশা চালাচ্ছেন এই মানুষটি। তিনির নাম তপন চন্দ্র ভৌমিক। ঢাকাতেই জন্ম তার। পরিবার-পরিজন নিয়ে থাকেন খিলগাঁওয়ের গোড়াণে। পূর্বপুরুষের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর।

সিএনজিচালিত অটোরিকশাকে এক টুকরো সবুজ বাগানে পরিণত করেছেন তিনি। পথ চলতে গিয়ে হঠাৎ চমকে যাওয়ার মতো দৃশ্য। ভেতরে দামি কাপড়ে মোড়ানো সিট। তার ওপর কুশন। সেই সঙ্গে দুই পাশে আকর্ষণীয় পর্দা ঝোলানো।

রয়েছে আয়না, চিরুনি, ক্যালকুলেটর, বমি ও মাথাব্যথার ওষুধ আর মোবাইল চার্জের ব্যবস্থা। মাছও আছে অ্যাকোরিয়ামে। শুধু প্রকৃতির প্রতিই ভালোবাসা না। তপন দেখিয়েছেন মানবতার এক বিরল নিদর্শন। তার অটোরিকশার সামনেই লেখা, অসহায় গর্ভবতী মায়েদের মেডিকেলে যাতায়াত একদম বিনামূল্যে।

সবাই এমন মানবিক হোক পাল্টে যাক সমাজ-দেশ। আসুন প্রত্যেকে একেকজন হয়ে উঠি তপন চন্দ্র ভৌমিক। তৌহিদ হাসান, ০৭ নভেম্বর ২০২১ ছবি: মোহাম্মদীয়া হাউজিং সোসাইটি।

সহায় সম্বল অর্থ থাকলে যে মানব সেবা করা যায় তা নয় মানব সেবা করতে হলে দরকার মন। অটোরিকশা সিএনজি চালক তপন চন্দ্র ভৌমিকদের মত আরও অনেকে এমন সেবা দিয়ে যাচ্ছেন অসহায়দের।

যেখানে সমাজের অর্থশালী বিত্তবানরা নিজেদের দামি গাড়িতে ঘুরে বেড়াচ্ছেন অলস ভাবে গ্যারেজে রেখে দিচ্ছেন নিজেদের গাড়ি আর তপন চন্দ্র ভৌমিকরা নিজেদের রুটি রোজির গাড়ি দিয়ে মানবসেবা দিয়ে যাচ্ছেন তার চেয়ে বেশি কি হতে পারে। পাল্টে যাক সমাজ ঘরে ঘরে তৈরি হোক এমন মানবিক কাজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *