তেলের দাম পুনর্নির্ধারণের বিষয়ে যা জানালেন অর্থমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম স্থিতিশীল পর্যায়ে এলেই দেশের বাজারে তেলের দাম পুনর্নির্ধারণ করা হবে। এসময় অর্থমন্ত্রী বলেন,

কারা অর্থপাচার করছেন তা নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক কাজ করছে, কার কেমন সাজা হলো তা আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হবে। এদিকে ক’রোনাভাই’রাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্র’নের বিষয়ে তিনি বলেছেন,

দেশের জন্য ওমি’ক্রন কতটা ক্ষ’তিকর হবে তা এখনও অজানা, তবে তা মোকাবিলা করতে সরকার প্রস্তুত রয়েছে। উল্লেখ্য, ক’রোনাভাই’রাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের বিরুদ্ধে টিকার কার্যকারিতা নিয়ে মডার্নার সিইও সন্দেহ প্রকাশের পর

মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম প্রায় ৩ শতাংশ কমে গেছে। এতে তেলের চাহিদা নিয়ে উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে। তবে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কমলেও, এর প্রভাব দেশের তেলের বাজারে এখনও পড়েনি। এর আগে গত ৩ নভেম্বর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে দেশে তেলের দাম নির্ধারণ করা হয়।

ভোক্তাপর্যায়ে প্রতি লিটার ডিজেল ও কেরোসিনের দাম ৬৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮০ টাকা নির্ধারণ করে সরকার। এ বিষয়ে ৫ নভেম্বর জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের ব্যাখ্যায় বলা হয়, চলতি অর্থবছরের শুরু থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি পেতে থাকায় সর্বাধিক ব্যবহৃত ডিজেলের ক্ষেত্রে বিপিসি লোকসানের সম্মুখীন হয়।

চলতি বছরের জুনে ডিজেলে লিটারপ্রতি ২ টাকা ৯৭ পয়সা, জুলাইয়ে ৩ টাকা ৭০ পয়সা, অগাস্টে ১ টাকা ৫৮ পয়সা, সেপ্টেম্বরে ৫ টাকা ৬২ পয়সা এবং অক্টোবরে ১৩ টাকা ০১ পয়সা লোকসান দিয়েছে বিপিসি। এ হিসাবে গত সাড়ে পাঁচ মাসে ডিজেলের ক্ষেত্রে বিপিসির মোট লোকসানের পরিমাণ প্রায় ১১৪৭ কোটি ৬০ লাখ টাকা;

যা সরকারি ভর্তুকি দিয়ে সমন্বয় করতে হবে বলে এতে উল্লেখ করা হয়। ব্যাখ্যায় বলা হয়, সার্বিক প্রেক্ষাপটে বৃহত্তর জাতীয় স্বার্থে সরকার ৪ নভেম্বর থেকে দেশে ডিজেল ও কেরোসিনের মূল্য পুনর্নির্ধারণ করেছে, যদিও আশপাশের অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশে ডিজেলের মূল্য এখনো কম।

ব্যাখায় সর্বশেষ দাম বাড়ানো ও কমানোর তথ্যও তুলে ধরা হয়। বলা হয়, সরকার ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে দেশে ডিজেলের মূল্য লিটারপ্রতি ৬৮ টাকা নির্ধারণ করেছিল। পরে ২০১৬ সালের এপ্রিলে তা ৩ টাকা কমিয়ে ৬৫ টাকা নির্ধারণ করে।

মন্ত্রণালয়ের ব্যাখ্যায় আরও বলা হয়, বর্তমান ক্রয়মূল্য বিবেচনা করে বিপিসি ডিজেলে লিটার প্রতি ১৩.০১ এবং ফার্নেস অয়েলে লিটার প্রতি ৬.২১ টাকা কমে বিক্রয় করায় প্রতিদিন প্রায় ২০ কোটি টাকা লোকসান দিচ্ছে। অক্টোবরে বিভিন্ন গ্রেডের পেট্টোলিয়াম পণ্যে মোট ৭২৬ কোটি ৭১ লাখ টাকা লোকসান হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *